প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অনেক সহযোদ্ধাকে পুলিশের বুলেটে আহত হতে দেখেছি

তিন মাস হলো ভালোভাবে পড়ার টেবিলে বসা হয় না। চাকুরীতে বৈষম্যহীন মেধা গড়ার প্রত্যয়ে কোটা সংস্কার আন্দোলনে এই তিনটা মাস যে কেমনে পাড়ি দিছি, যারা আমার সাথে ছিলো তারাই বলতে পারবে।  সকালের খাবার বিকালে, রাতের খাবার রাত ১২ টার দিকে আর ক্যাম্পাসের আহবায়ক এবং গ্রুপের এডমিন থাকার জন্য কত রাত যে নির্ঘুম কাটাতে হয়েছে। রাত জাগতে জাগতে কেমনে যে সকাল গেছে বুঝি-ই নাই। মাঝে মাঝে এক কাপড় পড়ে তিন-চার দিনও পাড়ি দিতে হয়েছে। এমনও দিন গেছে বোতলের পানি আর স্যালাইন খেয়ে সারাদিন রাজপথ অবরোধ দিছি। রাজপথ অবরোধের সময় লাইফের প্রথম পুলিশের টিয়ারশেলে আহত হয়েছিলাম।

পাশের অনেক সহযোদ্ধাকে পুলিশের বুলেটে আহত হতে দেখেছি, তাদের হাসপাতালে ভর্তি করানো, মাঝে মাঝে দেখতে যাওয়া, সব সময় খোঁজ খবর নেওয়া থেকে শুরু করে কত কিছুই না করা লাগছে। আমার ছোট ভাই আরেফিনের চোখে পুলিশের আঘাতের স্প্রিন্টার আজও বের করা যায় নি। আমার বড় ভাই মিথুনের পায়ের অপারেশনের রড এখনো বের করা যায় নি। আমরা যারা নেতৃত্বে ছিলাম আমাদের উপর যে কি পরিমাণ চাপ গেছে, আমাদের ছাড়া এটা কেউ আর বুঝবে না। দুষ্কৃতকারীদের রিপোর্টের কারণে ছয় দিন আমার এই আইডিতে যেতে পারি নাই। ঐ ছয় দিনে পর পর ৪ টা আইডি খুলছিলাম, একটা আইডিও এক ঘণ্টার উপর চালাতে পারি নাই দুষ্কৃতকারীদের রিপোর্টের জন্য।

পরিচিতি : আহ্বায়ক, সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা/মতামত : মো. এনামূল হক এনা/সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ