প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘পার্থক্যটা’ বুঝেই ফিরেছেন রুমানারা

ডেস্ক রিপোর্ট : গেল বছর নিজেদের মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকা নারী দলের সঙ্গে সমানে সমানে লড়েছেন রুমানা-সালমারা। ওয়ানডে সিরিজে ৫ ম্যাচের একটিতে ‘টাই’-ও করতে পেরেছিলেন। কিন্তু এবার অবশ্য ভিন্ন চিত্র। দক্ষিণ আফ্রিকার কঠিন কন্ডিশনে স্বাগতিকদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। ৫ ম্যাচের ওয়ানডে ও তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয়ে দেশে ফিরেছে রুমানা-সালমারা। যাওয়ার আগে যতটুকু লড়াইয়ের প্রত্যাশা ছিল মাঠে নামার পর দেখা গেল ভিন্ন বাস্তবতা। প্রোটিয়া নারীদের সামনে বেশ অসহায় লেগেছে সালমাদের।
কেন এমন বিপর্যয়? অধিনায়ক রুমানা আহমেদ সফর শেষে দেশে ফিরে তুলে ধরেছেন এমন হারের কারণ। তার মতে এক বছর আগের দেখা প্রোটিয়া নারী দল এখন অনেক বেশি পরিপক্ব। অনেক অভিজ্ঞ। তারা এ সময়ে যতটা উন্নতি করেছে বাংলাদেশ সেই সময়ে বসে কাটিয়েছে অনেকটাই। তিনি বলেন, ‘আমার দিক থেকে মনে হয়েছে ওরা অনেক এগিয়ে গেছে। আমরা গত বছর যেটা দেখেছি ওদের মাটিতে ওরা আসলে কিংয়ের মতো খেলেছে। আমাদের ঘাটতি বলবো না, আমরা দেখাতে পারি নাই। ওরা পুরোপুরিই দেখিয়ে গেছে। তাদের পেস অ্যাটাক ছিল অসাধারণ। যেখানে আমরা অনেক বেশি পিছিয়ে ছিলাম।’
অন্যদিকে দক্ষিণ আফ্রিকার কন্ডিশনটাও বড় পার্থক্য গড়ে দিয়েছে বলেই মনে করেন নারী ওয়ানডে দলের অধিনায়ক। তিনি বলেন, ‘কন্ডিশন অনেক ইফেক্ট করেছে। এখনও আমরা আমাদের দেশের কন্ডিশন থেকে বের হতে পারিনি।’ যদিও এ সফরে প্রস্তুতি ম্যাচে দুই সেঞ্চুরি দারুণ কিছুর আশা দেখিয়েছিল সফরকারীদের। কিন্তু সময় গড়াতেই মুখোমুখি হতে হয়েছে কঠিন বাস্তবতার। এ বিষয়ে রুমানা বলেন, ‘প্রস্তুতি ম্যাচে ভালো করায় প্রত্যাশা বেড়েছিল ঠিকই। কিন্তু ওদেরও কিন্তু ভালো ব্যাটসম্যান ছিল। প্রস্তুতি ম্যাচে খেলা ওদের দুই ব্যাটসম্যান কিন্তু টি-টোয়েন্টিতে অভিষেক হয়েছে। স্ট্যার্ট ভালো হলে মনে হয় সব ভালো হবে। প্রথম ম্যাচে (ওয়ানডে) হারের পরও ভেবেছিলাম ঘুরে দাঁড়াতে পারবো। কিন্তু ওরা সেটা হতে দেয়নি। অনেক বেশি সিরিয়াস ছিল।’ তবে এমন হারের পরও প্রাপ্তি দেখছেন নারী দলের অধিনায়ক। রুমানা বলেন, ‘অনেকদিন পর ওয়ানডে খেলতে গেছি। এ বছর ৫টা খেললাম। আবার কবে পাবো জানি না। সামনে এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টি। ওডিআই নাই। প্রাপ্তি বলতে অভিজ্ঞতা বাড়লো। ওরা ভালো টিম। এমন দলের সঙ্গে খেলতে কেমন প্রস্তুতি দরকার সেটা ভালোভাবেই বুঝেছি।’ সুত্র : যুগান্তর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত