প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিশ্বের তৃতীয়তম চুল রপ্তানিকারী দেশ মিয়ানমার

মনিরা আক্তার মিরা: বিশ্বব্যাপী পরচুলা এবং টাসেল একটি উৎস হচ্ছে মিয়ানমার। ২০১৬’র এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে বিশ্বে চুলের বাণিজ্যে ৮৭.৪ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি আয় করেছে মিয়ানমার। চুল রপ্তানিতে ভারত ও তিউনিশিয়ার পরে মিয়ানমার তৃতীয় বৃহত্তম দেশ।

দেশটির চুল ব্যবসায়ি আয়ে আয়ে থিন বলেন, মিয়ানমারে সব থেকে উন্নত মানের চুল পাওয়া যায়। চুলের মূল্য নির্ধারিত করা হয় ওজন এবং মানের উপর নির্ভর করে। ১০ ইঞ্চি লম্বা দেড় কেজি পরিমানের চুলের মূল্য ১১ ডলার থেকে ১৫০ ডলার পযর্ন্ত হয়ে থাকে। এমনকি পুরুষরাও মাঝে মাঝেও তাদের চুল বাড়িয়ে বিক্রি করে থাকে। যদিও ক্রেতারা পুরুষ ও মহিলা চুলের মধ্যে কোন বৈষম্য করেন না বলে জানান তিনি। হাতায় উইন নামে আর এক ব্যবসায়ি বলেন বাংলাদেশ থেকেও চুল রপ্তানি করা হয় এবং রপ্তানিকৃত চুলগুলো মিয়ানমার চুলের সাথে মিশিয়ে বিক্রি করে তারা।

বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বি দেশ মিয়ানমারে চুলকে পবিত্র হিসেবে বিবেচনা করা হয়। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বিরা বিশ্বাস করে বৌদ্ধ মন্দির শোয়েদাগন প্যাগোডাটি বৌদ্ধ ধর্ম প্রবর্তক গৌতম বুদ্ধের চুলের উপর দাড়িয়ে আছে। প্রতি বছর বৌদ্ধ নববর্ষ উদযাপনে অনেক নারীরা চুল কেটে ত্যাগ শিকার করে। বেশির ভাগ কাটা চুলগুলো চীনে প্রক্রিয়াকরণ করে পশ্চিমা দেশগুরোতে বিক্রি করা হয়। সিএনএন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত