প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খুলনায় সুষ্ঠু ভোটের নামে হয়েছে জাল ভোট

খুলনা সিটি নির্বাচনে ২৮৯ ভোট কেন্দ্রে কোন ক্যামেরা ছিল না। সেখানে কোন সাংবাদিক ছিল না, ভোট চলাকালিন  ছবি তুলবে। এবং ৩০-৪০ জনের একটি দল ছিল। তারা ১৫ টি ভোট কেন্দ্রে ব্যালেট পেপারে নৌকায় সিল মেরে ব্যালট বক্সে ঢুকিয়েছেন। আ’লীগ এর মেয়র প্রার্থী ছিলেন, তিনি যে ভোট কেন্দ্রে  গিয়েছেন, সব সাংবাদিকরা তার সামনে থেকেছে। এর মধ্য আগের দলটি ব্যালট পেপারে সিল মেরেছে আর বক্স ভরেছে। যে কারণে কয়েক হাজার ভোটের ব্যবধান হয়ে গেছে। বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ সহ সব প্রশাসন ভোটের আগের দিন পর্যন্ত রাখা হয়েছে।

আর ভোটের দিন সেখানে কোন প্রশাসনের লোক দেওয়া হয়নি। সেখানকার অনেক ভোটাররা অভিযোগ করেছে, তারা ভোট দিতে আসার আগে তাদের ভোট দেওয়া হয়ে গিয়েছে। এক ভদ্রলোক নির্বাচনি কাজে নিয়োজিত একজনকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, আমার স্ত্রীর ভোটটা কি দিয়েছেন? নির্বাচনির সেই লোকটি বলেছেন, হ্যাঁ আপনার স্ত্রীর ভোট দিয়ে দিয়েছি। পরে সেই ব্যক্তি বললেন, আলহামদুলিল্লাহ, আমার স্ত্রী তিন বছর আগে মারা গিয়েছে।  এটা থেকে প্রমাণ হয়, খুলনা সিটি নির্বাচন কতটুকু সুষ্ঠু হয়েছে। এজন্য সেখানে হয়েছে জাল ভোট এবং ভোট ছিনতাই। ভোটের আগের দিন পর্যন্ত বিএনপির নেতাকর্মীদের গণহারে পুলিশ দিয়ে গ্রেফতার হয়েছে।

পরিচিতি : যুগ্ম মহাসচিব, বিএনপি/ মতামত গ্রহণ : রাশিদুল ইসলাম মাহিন/ সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত