প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঠিক যেন আধুনিক কবিগুরু!

সাঈদা মুনীর: জন্মদিনে ‘রসিক’ ভক্তদের কাছ থেকে একটা ছোট্ট উপহার আর তাতেই বিতর্ক গোটা রাজ্য জুড়ে। ২৫ শে বৈশাখ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মদিন। সেই উপলক্ষেই, বর্তমান যুগের ‘রবিপ্রেমিক’রা একটা ছোট্ট ‘দুষ্টুমি’ করে ফেলেছে৷ আর তাই নিয়েই উত্তাল গোটা বাংলা৷ রীতিমত দুভাগ বাঙালি।

এটা ২০১৮ সাল যুগ পাল্টেছে।   চিরকালীন সেই আলখাল্লা পরে আর তাঁকে দেখতে ভালো লাগে বলুন। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আলট্রা মডার্ণ না হলেও একটু আধুনিক তো হতেই হবে নাকি ! আর ঠিক সেই কারণেই তরুণ ভক্তরা সাজিয়ে দিয়েছেন কবিগুরুকে। পরণে জিন্স টি শার্ট, টি শার্টের উপর বোতাম খোলা জ্যাকেট, গলায় চেন, বাঁ হাতে উল্কি। সম্পূর্ণ ভোলবদল রবি ঠাকুরের৷ ঠিক যেন আধুনিক কবিগুরু। সোস্যাল মিডিয়ার কল্যাণে ইতিমধ্যেই ভাইরাল আধুনিক রবীন্দ্রনাথের এই ছবি।

তবে, স্বয়ং কবিগুরুও ওই বিতর্কের আভাস গিয়ে গেছেন বহূ আগেই৷
‘এত বুড়ো কোনোকালে হব নাকো আমি
হাসি তামাসারে যবে ক’ব ছ্যাবলামি৷
এ নিয়ে প্রবীণ যদি করে রাগারাগি
বিধাতার সাথে তারে করি ভাগাভাগি
হেসে হেসে লব তাহা মানি’৷

স্বয়ং রবিঠাকুরও তো বুড়ো হতে চান নি৷ তাই তো নিজে বহূদিন আগেই বলে গেছেন এই কথা৷

জিন্স টি শার্টে ‘দাড়িবাবা’কে লাগছেও কিন্তু বেশ৷ স্বয়ং রবীন্দ্রনাথ বেঁচে থাকলে এই ড্রেস ডিজাইনারকেই তাঁর ব্যক্তিগত ডিজইনার করে নিতেও পারতেন। কিন্তু বর্তমান জেনারেশন খুশি হলেও বিপদ বেঁধেছে বয়স্কদের নিয়ে। ইয়াং জেনারেশনের ভাষায় বাংলার নতুন শব্দ ‘মেট্রো দাদু’রা শুরু করেছেন প্রতিবাদ। আলখাল্লার ঠাকুরকে কোন মুর্খ আধুনিক করেছে, শুরু হয়েছে সন্ধান।

ঠাকুর যাই বলে যান, নিজের ছবি নিয়ে এই তর্ক বিতর্কের শেষ কখনই হবে না। আলখাল্লা ছেড়ে আধুনিক জিন্স টি শার্টে ঠাকুরের হাঁসফাঁস হবে কিনা সেটাও প্রশ্ন৷ যদিও দৃষ্টিভঙ্গি ও মানসিকতার দিক দিয়ে কবিগুরু ছিলেন যথেষ্ট আধুনিক। তবে, ১৫৮ তম জন্মদিনে পা দিয়ে ‘বুড়ো’ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এখনও ‘ইয়াং’ জেনারেশনের সোস্যাল মিডিয়ার চর্চার কেন্দ্রস্থলে। আর এখানেই রবি ঠাকুরের ক্যারিশমা।

কিন্তু প্রশ্ন উঠছে, তাহলে কি রবীন্দ্রনাথ, বিদ্যাসাগর, সুভাষচন্দ্র বা চিত্তরঞ্জনকে নিয়ে কোন ইয়ার্কি ঠাট্টা বা আধুনিক ভাষায় ট্রোল করা যাবে না। কলকাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা বলছেন, এই ধরণের মজা খুব স্বাভাবিক। তাদের মতে, ‘আমাদের কাছে যাঁরা বিখ্যাত, সম্মাণীয়, তাঁদের নিয়েই তো মজা করতে পারি, এর সঙ্গে অপমান বা অসম্মানের প্রশ্ন আসছে কেন?’

কিন্তু এই যুক্তি মানতে রাজী নন বয়স্ক নাগরিকরা। তাঁদের মতে, রবীন্দ্রনাথকে জিন্স টি শার্ট পরিয়ে তাঁকে অপমান করা হয়েছে, অসম্মান করা হয়েছে।  বাঙালি জাতিকে অপমান করা হয়েছে এই ছবি দিয়ে। গুরুদেবের ভাবমূর্তিকে কালিমালিপ্ত করা হয়েছে বলেও ক্ষুব্ধ অনেকে।

‘যে খ্যাতির সম্বল অল্প তার সমারোহ যতই বেশি হয়, ততই তার দেউলে হওয়া দ্রুত ঘটে’, বলে গিয়েছেন স্বয়ং কবিগুরু। সম্বল অল্প, সমারোহ বেশি বলেই কি এই অপরিণত ভাব। এদের দেউলিয়া হতে কি বেশি সময় লাগবে না?

সূত্র: কলিকাতা২৪

সর্বাধিক পঠিত