প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আমার ফুটবলার হবার স্বপ্নটাই শেষ!

আসিফুজ্জামান পৃথিল : গাজা-ইসরায়েল সীমান্তে চলমান বিক্ষোভে নির্বিচারে গুলি চালাচ্ছে ইসরায়েলী স্নাইপাররা। অসংখ্য মানুষের সাথে সেখানে গুলিবিদ্ধ হয়েছে দুই তরুণ ফিলিস্তিনি কিশোর। ফুটবলার হওয়ার স্বপ্ন ছিল তাদের । কিন্তু গুলিবিদ্ধ হওয়ায় তাদের পা কেটে ফেলতে হয়েছে। সম্প্রতি রাশিয়ান গণমাধ্যম রাািশয়া টুডের মুখোমুখি হয়েছিলেন এই দুই তরুণ। উঠে এসেছে তাদের ফুটবলার হবার স্বপ্ন চুরমার হয়ে যাবার কথা।

নিজ মাতৃভূমির মুক্তির জন্য বিক্ষোভে গিয়ে ইসরাইলি সেনাদের গুলিতে বিদ্ধ হন ১৭ বছরের কিশোর আল-আজউরি। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার প্রাণ বিপন্ন হলে চিকিৎসকরা পা কেটে ফেলার সিদ্ধান্ত নেন। ইসরায়েল নিরাপত্তার ধুয়া তুলে বিক্ষোভকারীদের উপর নির্বিচারে তাজা গুলি চালিয়েছে। এর ফলে আজউরির মতো কতো কিশোরের স্বপ্ন ধুলিস্মাৎ হয়ে গেছে তার ইয়ত্তা নেই।

আজউরির ৬ ঘন্টাব্যাপি অস্ত্রপচার চলে এবং তাকে প্রায় এক সপ্তাহ আইসিইউতে থাকতে হয়। তিনি আরটিকে বলেন, ‘আমি কখনই ভাবিনি আমার পায়ের এই অবস্থা হবে। আমার ধারণাই ছিলনা আমার পা কেটে ফেলা হবে। সম্ভবত আমার আত্বীয়রা ডাক্তারদের অনুরোধ করেছিলেন বিষয়টা আমাকে না জানাতে। আমি একজন খেলোয়াড় ছিলাম। আমি একাধিক খেলায় অংশ নিতাম এবং আমি ফিলিস্তিন ইউনিয়নের হয়ে খেলতাম।’

তিনি জানান ইসরায়েলি সেনারা নিরস্ত্র ফিলিস্তিনিদের উপর বর্বরভাবে গুলি চালাচ্ছিল। তার সামনেই এক বৃদ্ধ এক্সপ্লোসিভ বুলেটের আঘাতে পরে যান। আজউরি বলেন ‘তিনি শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ জানাচ্ছিলেন। এমনকি তিনি কোন পাথর পর্যন্ত ছোঁড়েননি। ’

জীবন একেবারে বদলে গেছে গাজার তরুণ ফুটবলার মোহাম্মদ আবেদের। ইসরায়েলি স্নাইপারদের গুলি তার পাকেও বিদ্ধ করে। তিনি বলেন, ‘আমার পুরোটা ক্যারিয়ার জুড়ে আমি সবসময় আশা করেছি আমি একদিন গাজার সেরা ফুটবলার হবো। এই আঘাতের পর আমার স্বপ্নটা শেষ হয়ে গেছে। আমার ক্যারিয়ারটাই শেষ।’ এই সাবেক ফুটবলার বিক্ষোভ চলাকালে নিজের ভিডিও শ্যুট করছিলেন। উদ্দেশ্য ছিল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তা পোষ্ট করা। সেসময়েই তিনি গুলিবিদ্ধ হন। বিছানায় শোয়া অবস্থায় আবেদ বলেন, ‘আমি যখন ছবি তুলছিলাম তখন একটি গুলি আমার হাটুতে এসে লাগে । আমাকে কোন কারণ ছাড়াই লক্ষ্য বানানো হয়েছে। আমি কোনভাবেই সৈনিকদের জন্য হুমকি ছিলাম না। যদি আমাকে আল্লাহ সাহায্য করেন, তাহলে আমি অস্ত্রপচার করতে পারবো এবং ইউরোপে সর্বোচ্চ পর্যায়ে আমি ফিলিস্তিনের পতাকাকে তুলে ধরবো। আমার স্বপ্নই ছিল ইউরোপিয়ান লীগে অংশ নেয়া।’ – আরটি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত