প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নদী ভাঙন প্রতিরোধের দাবি হাতিয়াবাসীর

শাকিল আহমেদ: ব্লক নির্মাণসহ আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে অব্যাহত নদী ভাঙ্গনের কবল থেকে নোয়াখালীর বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা হাতিয়াকে রক্ষার দাবী জানিয়েছে দ্বীপবাসী।

রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধন থেকে এ দাবী জানান দ্বীপের সাধারণ বাসিন্দারা। নদী ভাঙনের কবল থেকে বৃহত্তর হাতিয়াকে রক্ষার দাবিতে আন্দোলনকারী সংগঠন “হাতিয়া নদী ভাঙ্গন রোধ কমিটি” উক্ত মানববন্ধনের আয়োজন করে ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, মেঘনা নদীর অব্যাহত ভাঙ্গনে বিলীন হচ্ছে নোয়াখালী জেলার বিচ্ছিন্ন উপজেলা হাতিয়ার বিস্তীর্ন সমৃদ্ধ জনপদ। বর্ষা শুরু না হতেই শুরু হয়েছে তীব্র নদী ভাঙ্গন। প্রতি বছর নদী ভাঙ্গনের কারনে হাতিয়ার প্রায় পাঁচ কিলোমিটার এলাকা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়।

১৯৬০ সাল থেকে হাতিয়া নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়ে। ১৯৬৮ সাল থেকে এ ভাঙ্গন ভয়াবহ আকার ধারন করে। এ সময় থেকে মেঘনা নদী হাতিয়ার পূর্ব, পশ্চিম ও উত্তর উপকূলে প্রচন্ড প্রতাপে ভাঙ্গতে থাকে। বর্তমানে হাতিয়ার আয়তন ২১০০ বর্গ কিলোমিটার। ১৯৬০ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত হাতিয়ার প্রায় ২৫০ বর্গ কিলোমিটার এলাকা মেঘনায় বিলীন হয়ে গেছে।

বক্তারা আরও বলেন আগামি কয়েক মাসের মধ্যে মানচিত্র থেকে মুছে যাবে হাতিয়ার সমৃদ্ধ জনপদ ও বাণিজ্যিক কেন্দ্র আফাজিয়া বাজার এলাকা। বর্তমানে চর ঈশ্বরের পূর্বাঞ্চল, চরকিংয়ের পশ্চিমাঞ্চল, তমরদ্দি ও সোনাদিয়া ইউনিয়নের কিছু অংশ ভাঙ্গনের কবলে রয়েছে। এছাড়াও দেশের মুলভূখন্ডের সাথে সংলগ্ন হাতিয়ার বয়ার চর, কেরিংচর ও নলের চর ভাঙ্গছে অবিরত।

“হাতিয়া নদী ভাঙ্গন রোধ কমিটি”র আহ্বায়ক মোসাদ্দেক চৌধুরী এর সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব প্রকৌশলী তানভীর উদ্দিন রাজীব এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মানব বন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ঢাকাস্থ হাতিয়া দ্বীপ সমিতির সাবেক সভাপতি প্রফেসর ডা. জাহেদুল আলম এবং বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ঢাকাস্থ হাতিয়া দ্বীপ সমিতির বর্তমান সভাপতি হেদায়েত হোসেন।

নদী ভাঙ্গন সমস্যা ও রোধকল্পে আরো বক্তব্য রাখেন আনোয়ার হোসেন যতন, সাংবাদিক শাহেদ শফিক, ডা. মো: ফজলে এলাহী মিলাদসহ আরও অনেকে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত