প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে আইনের কঠোর প্রয়োগ করা হবে সাঈদ খোকন

ডেস্ক রিপোর্ট : বেপরোয়া গাড়ির চালক ও নাগরিক অসচেতনতাই সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ। তাই সড়ক দুর্ঘটনা রোধে আইনের কঠোর প্রয়োগ করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন।

একইসঙ্গে সড়ক দুর্ঘটনা অত্যন্ত আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে যাওয়ায় তিনি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। শনিবার শাহবাগে ‘সড়ক দুর্ঘটনা রোধে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা ও নাগরিক উদ্বুদ্ধকরণ’ কর্মসূচীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। শাহবাগ চৌরাস্তা এলাকায় এ কর্মসূচীর উদ্বোধন করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মোঃ বিলাল, বাংলাদেশ স্কাউটসের জাতীয় কমিশনার (সমাজ উন্নয়ন ও স্বাস্থ্য) এবং দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ের সচিব শাহ কামাল, স্থানীয় কাউন্সিলর এম এ হামিদ খান ও কাউন্সিলর হাসিবুর রহমান মানিক প্রমুখ।

সম্প্রতি সড়ক দুর্ঘটনা আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে উল্লেখ করে মেয়র বলেন, চালকদের কা-জ্ঞান যানবাহন চালানোকে দায়ী করে সাঈদ খোকন বলেন, ঢাকা শহরে যারা বাস চালাচ্ছেন তাদের অধিকাংশের বয়স ১২ থেকে ১৪ বছরের মধ্যে। অনেকের ড্রাইভিং লাইসেন্সও নেই। ছোট ছোট ছেলেরা বেপরোয়া বাস চালাচ্ছে। এর ফলেই দুর্ঘটনা ঘটছে। বাসের সুপারভাইজার ও সহকারীদের আচরণে প্রতিনিয়ত যাত্রীরা হয়রানির মুখোমুখি হচ্ছেন। এ জন্য আমাদের আরও অনেক বেশি কঠোর হতে হবে। আমরা সমন্বিতভাবে এটাকে মোকাবেলা করতে চাই।

সাঈদ খোকন বলেন, সড়ক দুর্ঘটনা রোধে আইনের কঠোর থেকে কঠোরতর প্রয়োগ করতে চাই। সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে মাঝে মাঝে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। কিন্তু সাম্প্রাতিক কয়েকটি মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনা আমাদের বিবেককে নাড়া দিয়েছে। সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু, আহত, নিহতের সংখ্যা অনেক বেশি, সেটা অনেকটাই আমাদের অগোচরে চলে যায়। কিছুদিন আগে দু’টি বাসের সংঘর্ষে এক নাগরিকের হাত হারিয়ে শেষ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে। তার কয়েকদিন যেতে না যেতেই আবার সড়ক দুর্ঘটনা। সড়ক দুর্ঘটনা অত্যন্ত আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে গেছে। এটা উদ্বেগের বিষয়।

মেয়র বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার আরেক কারণ নাগরিক অসচেতনতা। আমাদের সচেতনতার বড় অভাব রয়েছে। রাস্তায় চলাচলের সময় প্রায়ই দেখা যায় মোবাইল ফোনে কথা বলতে বলতে রাস্তা পার হচ্ছেন। আবার অনেকে কানে হেডফোন-ব্লুুটুথ ব্যবহার করেও রাস্তা পার হচ্ছে, যা দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ। এ জন্য নগরবাসীকে সচেতন হওয়ার পাশাপাশি জেব্রা ক্রসিং, সিগন্যাল বাতি দেখে রাস্তা পার হওয়ার আহ্বান জানান ঢাকা দক্ষিণের মেয়র। তিনি বলেন, সবার প্রচেষ্টাতেই আগামী প্রজন্মের জন্য নিরাপদ শহর উপহার দেয়া হবে। আলোচনা শেষে মেয়র বাস চালক, পথচারী ও রিক্সাচালকদের মাঝে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করেন। সূত্র : জনকন্ঠ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত