প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাজধানীতে স্বামীর নির্যাতনে স্ত্রীর মৃত্যু

মোস্তাফিজুর রহমান : রাজধানীর হাজারীবাগে স্বামীর নির্যাতনে গৃহবধূ মারুফা আক্তার (২৮) মারা গেছেন। শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে চিকিৎসধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

এর আগে শুক্রবার সন্ধ্যায় তাকে রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করে প্রাইভেট কার চালক ও নিহত গৃহবধূর স্বামী মো. সুজন। এরপর স্থানীয় হাসপাতালে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। সেখান থেকে ওইদিন রাত ২টার দিকে মারুফাকে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। নিহতের স্বামীর গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহের ইশ্বরগঞ্জের উজান চর নওপাড়ায়।

বরিশালের গৌরনদীর শাহাজিরা গ্রামের ইউসুফ হাওলাদারের ৪ সন্তানের মধ্যে ৩য় ছিলেন মারুফা। স্বামী ও ২ মেয়ে শ্রিতি অক্তার সুইটি (৯) ও আয়শাকে (৩) নিয়ে হাজারীবাগ টালি অফিস চরকঘাট মসজিদ গলির ১৬/১ নম্বর চুন্নু মিয়ার বাড়িতে স্বামীর সঙ্গে ভাড়া বাসায় থাকতেন।

নিহতের বড় ভাই রুবেল হাওলাদার জানান, ১২ বছর আগে প্রেমের সম্পর্কের মাধ্যমে মারুফা সুজনকে বিয়ে করে। তাদের ২ কন্যা সন্তান রয়েছে। পারিবারিক বিষয় ও যৌতুক দাবী করে মাঝে মধ্যেই মারুফাকে নির্যাতন করতো সুজন। এর আগেও একবার পিটিয়ে হাত ভেঙে দিয়েছিলো তার। কিছুদিন আগেও তাকে ৫০হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় ২ লাখ টাকার দাবীতে আবারো মারধর করে মারুফাকে। একপর্যায়ে আহত অবস্থায় সুজন নিজেই তাকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে রাত ২টার দিকে তাকে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, হাসপাতালে ভর্তির সময় সুজন চিকিৎসকদের জানান, মারুফার পেট ব্যাথা। এজন্য চিকিৎসকরা তাকে মেডিসিন বিভাগে ভর্তি করান। খবর পেয়ে শনিবার সকালে স্বজনরা হাসপাতালে এসে মারুফাকে দেখতে পান। পরে তার মুখেই স্বামীর নির্যাতনের কথা শুনেন। পরে পুলিশে খবর দিলে হাজারীবাগ থানা পুলিশ হাসপাতাল থেকে সুজনকে আটক করে নিয়ে যায়।

ঢামেক ক্যাম্পের এস আই মোহাম্মদ বাচ্চু মিয়া জানান, মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে রাখা হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত