প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাংলাদেশ সরকার ও আইনের প্রতি আস্থা রাখলেন তারেক রহমান (ভিডিও)

ডেস্ক রিপোর্ট: বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, তারেক রহমান এবং তারেক রহমানের স্ত্রী ড. জোবায়দা রহমানের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন আদালতে বর্তমানে মোট ২৭টি মামলা রয়েছে। এসব মামলার মধ্যে দু`টিতে খালেদা জিয়ার সঙ্গে তার দুই ছেলেকে এবং একটিতে তারেক ও প্রয়াত কোকো আলাদা আলাদাভাবে আসামি।

বর্তমানে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়ে ৫ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া কারা ভোগ করছেন। অপরদিকে তার ছেলে ফেরারি আসামি হয়ে অবস্থান করছেন লন্ডনে। তবে এসব মামলাকে সর্বদাই মিথ্যা মামলা বলে উড়িয়ে দেয় বিএনপি।

এ প্রসঙ্গে বিএনপির এক সিনিয়র নেতা বলেন, খালেদা জিয়া, তারেক রহমানসহ বিএনপির যত নেতাদের বিরুদ্ধেই মামলা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। আদালতে দণ্ডিত প্রমাণিত হয়ে যেসব নেতারা কারাবরণ করছে তারও কোনো ভিত্তি নেই। বর্তমান আদালতের ওপর দেশের জনগণসহ আমাদের কোনো আস্থা নেই।

তবে বিএনপির এ বক্তব্য ভুল প্রমাণ করে আদালতের প্রতি আস্থা দেখিয়ে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম ও বসুন্ধরা গ্রুপের মালিকানাধীন পত্রিকা ‘কালের কণ্ঠ’ ও ‘বাংলাদেশ প্রতিদিন’- এর সম্পাদককে লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছিলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। এ ব্যাপারটিকে ইতিবাচক বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

তারা বলছেন, বার বার মুখে বললেও তারেক রহমানের লিগ্যাল নোটিশ দেবার পর মনে হচ্ছে, আদালতের প্রতি আস্থা রয়েছে তারেক রহমানের। যা থেকে আশা করা যায়, আগামীতে অবশ্যই আদলতের ওপর তার মা খালেদা জিয়া যেভাবে আস্থা পোষণ করেছেন ঠিক একইভাবে বাংলাদেশে এসে কারা ভোগ করতে পারে তারেক রহমান।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের এক সিনিয়র নেতা বলেন, এটা অবশ্যই তারেক রহমানের ইতিবাচক দিক। আবার খানিকটা হাস্যকরও বটে। কারণ, যখনই তারেক রহমানের কারাভোগের কথা আসে, তখনই আদালতের প্রতি আস্থা থাকে না বিএনপির। কিন্তু সেই আদালতের প্রতি নিজের স্বার্থ উদ্ধারের জন্য আস্থা চলে আসাটা খানিকটা বেমানান। তবে বিএনপির চরিত্রের সাথে একমুখে দু’রকমের কথা সর্বদাই মানিয়ে যায়।

প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের বিরুদ্ধে লিগ্যাল নোটিশের আগে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট কামরুল ইসলামের বিরুদ্ধেও লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন তারেক রহমান। এছাড়া আমাদের সময় অনলাইন পত্রিকার প্রধান সম্পাদক নাঈমুল ইসলাম খানের বিরুদ্ধে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছিলেন তারেক রহমানের স্ত্রী জোবায়দা রহমান। কিন্তু নিজেদের দুর্নীতি মামলা নিয়ে কথা বললেই আদালতের প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলেন তারা। এমন দ্বিধায় আক্রান্ত দলের প্রতি সাধারণ মানুষের আস্থা তৈরি হবার কথা নয় বলেও মনে করছেন একাধিক রাজনৈতিক বিশ্লেষক।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত