প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

গুলশানে হচ্ছে ঝুঁকিপূর্ণ শিশু বিনোদনকেন্দ্র

ডেস্ক রিপোর্ট : রাজধানীর গুলশান লেক পার্কে শিশুদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ বিনোদন কেন্দ্র নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে গুলশান সোসাইটির প্রায় দেড়শ সদস্যের স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) চেয়ারম্যানের কাছে জমা পড়েছে। কিন্তু অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে রাজউকের পক্ষ থেকে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন সোসাইটির একজন সদস্য।

লিখিত অভিযোগে বলা হয়েছে, গুলশান সোসাইটির সব নির্বাহী সদস্য দুবছরের জন্য ভোটে নির্বাচিত হয়ে থাকেন। নির্বাচিত কমিটি গুলশান এলাকার সার্বিক উন্নয়ন, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন এবং নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন জনকল্যাণমুখী কাজের সঙ্গে জড়িত থাকেন। গুলশান লেক পার্কের সব রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব তাদের ওপর ন্যস্ত। একজন ব্যক্তির ৩০ লাখ টাকা আর্থিক সহায়তায় গুলশান সোসাইটি লেক পার্কের অভ্যন্তরে শিশুদের জন্য একটি বিনোদনকেন্দ্র নির্মাণ শুরু করা হয়েছে। কিন্তু পরিতাপের বিষয় শিশু বিনোদনকেন্দ্রের জন্য যেসব খেলাধুলার সামগ্রী কেনা হয়েছে, তা খুবই নিম্নমানের এবং আধুনিকতাবিবর্জিত স্থাপনা নির্মাণ করা হচ্ছে। বিনোদনকেন্দ্রে খেলাধুলার সামগ্রী প্লাস্টিক ফ্লাইবার ব্যবহার না করে পুরনো স্টিলের পাত স্থাপন করছে। এসব স্টিলের পাত পরবর্তীতে মরিচা ধরার আশঙ্কা রয়েছে, যা শিশুদের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক ও মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ হবে। শিশু বিনোদনকেন্দ্রে স্টিলের পরিবর্তে প্লাস্টিক ফাইবার সামগ্রী ব্যবহার করতে বারবার অনুরোধ করা সত্ত্বেও গুলশান সোসাইটি কর্তৃপক্ষ তা শুনছে না। গুলশান, বনানী ও বারিধারার বাসিন্দাদের পক্ষ থেকে বিষয়টি জরুরি ভিত্তিতে তদন্ত এবং এ ধরনের ঝুঁকিপূর্ণ নির্মাণকাজ বাতিল করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানানো হলো।

গুলশান সোসাইটির এক সদস্য বলেন, লেক পার্কে শিশুদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ নির্মাণসামগ্রী দিয়ে বিনোদনকেন্দ্র তৈরি করা হচ্ছে, তা অত্যন্ত দুঃখজনক। শিশুরা এসব খেলার সামগ্রী ব্যবহার করতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হবে। এ ধরনের ঝুঁকিপূর্ণ খেলার সামগ্রী দিয়ে বিনোদন না করতে সোসাইটির নেতাদের অনুরোধ করা হয়েছে; কিন্তু তারা তা মানেননি। টাকা চুরি করে গোঁজামিল দিয়ে বিনোদনকেন্দ্র নির্মাণের কাজ করছে। আমরা রাজউক চেয়ারম্যানের দপ্তরে অভিযোগ করেছি। কিন্তু এখনো এ বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি।
ঝুঁকিপূর্ণ বিনোদনকেন্দ্র নির্মাণ করা ছাড়াও লেকের মাছ ধরে বিক্রি করাসহ অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে সোসাইটির নেতাদের বিরুদ্ধে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাজউকের ৩ ও ৪ নম্বর জোনের পরিচালক মো. অলিউর রহমান বলেন, গুলশান লেক পার্কে শিশুদের বিনোদনকেন্দ্রে খেলার সামগ্রী স্থাপনের বিষয়ে আমার দপ্তরে কোনো অভিযোগ আসেনি। বিষয়টি এখন যেহেতু জেনেছি, আগামী সোমবার রাজউকের একজন পরিদর্শককে ঘটনাস্থলে পাঠাব। পরিদর্শকের রিপোর্টের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সূত্র : আমাদের সময়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত