প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চট্টগ্রামে নিখোঁজ স্কুল শিক্ষিকার দু’সপ্তাহেও মেলেনি সন্ধান

সাজিয়া আক্তার: চট্টগ্রামে দু’সপ্তাহ থেকে নিখোঁজ এক স্কুল শিক্ষিকা। টিউশনি করতে বাসা থেকে বের হওয়ার পর থেকে বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে তার মুঠোফোনটি। তার নিখোঁজের পুরো বিষয়টি নিয়ে দেখা দিছে ধোঁয়াসা। কী ঘটেছে তার ভাগ্যে এনিয়ে দুষচিন্তায় দিন পার করছেন স্বজনেরা। এদিকে দু’সপ্তাহেও তার নিখোঁজের রহস্য উদ্বঘাটন করতে পারিনি পুলিশ।

রহস্য উদ্বঘাটনে মাঠ ঘাট চশেবেড়ানো চট্টগ্রামের সাংবাদিক দেবাশীষ বড়–য়া দেবু আজ যেনো নিজেই গোলোক ধাঁধায়। দু’সপ্তাহে খোঁজ মিলছে না তার প্রাণপ্রিয় সহধর্মীনি মনিকা রাধার। গেল বার এপ্রিল টিউশনির উদ্দ্যেশে নগরির লালখানবাজার এলাকার বাসা থেকে বেড়িয়ে বাসা হয়ে আর বাড়ে ফেরেনি এই সঙ্গিত শিক্ষিকা, বন্ধ মুঠোফোনটিও। অনেক খোঁজাখুজির পরো সন্ধান না পাওয়ায় হতাশায় তার পরিবার।

মনিকার স্বামী দেবাশীষ রড়–য়া দেবু বলেন, আমরা এখন কীযে দুর্বীসহ এক একাদিন পার করছি তা বলে বুঝাবার মত না। আজকে কয়েকটা দিন পার হয়ে গেল কিন্তু কোনো সন্ধান মেলেনী মনিকার। আমরা ভগবানের দিকে তাকিয়ে আছি, আমরা চাই যে মনিকা আমাদের মাঝে ফিরে আশোক।

কারো সাথে ব্যক্তিগত কোনো শত্রুতা নেই মনিকা ও দেবাশীষ এই দম্পত্মীর। নেই অর্থবিত্যের প্রাচুর্য, সবকিছু ভালোভাবেই চলছিল। কিন্তু হঠাৎ তার নিখোঁজ হয়ার পিছনে কী কারণ থাকতে পারে এ নিয়ে কিছুই ধারনা করতে পারছে না স্বজনেরা।
মনিকার ছোট বোন মন্টি বৈষ্ণব বলেন, আশঙ্কা তো অনেক কিছুই করা যায়, কিন্তু আমরা কিছু আশঙ্কা করতে পারছি না, কারণ আমরা এমন কোনো প্রমাণ ও পাচ্ছিনা মে কোনো আশঙ্কা করবো। ওতো নিখোঁজ, আমরা চাচ্ছি আপ্পু ফিরে আসুক।
মনিকার নিখোঁজে রহস্যের বৃত্তজালে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও। সব দিক বিবেচনায় রেখে তদন্ত্য হচ্ছে বলে দাবি পুলিশের।
সিএমপি উপ-পুলিশ কমিশনার আবদুল ওয়ারীশ বলেন, আমি উনার পরিবারের এবং সহকর্মীদের সাথে কথা বলেছি এবং বের করার চেষ্টা করছি উনি কুথায় যেতে পারেন বা কী হতে পারে। মনিকা কী সেচ্ছায় চলে গেছেন না অপহরণ হয়েছেন অথবা অন্যকিছু হয়েছে এই বিষয়টা আমরা উদ্বঘাটন করার চেষ্টা করছি। নগরির কাতারগঞ্জ এলাকার লিটন জুয়েলস স্কুলের সঙ্গিত শিক্ষিকা মনিকা । এখন কেবল তার ফিরে আসার প্রহর গুণছেন স্বজনেরা।

চ্যানেল ২৪ টেলিভিশন থেকে মনিটরিং

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত