প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘বাস-ট্রাক মালিক ও শ্রমিকের দুই নেতা মন্ত্রী হওয়ায় শ্রমিকরা রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালী’

রফিক আহমেদ : বিশিষ্ট সাংবাদিক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা বলেছেন, বাস মালিক সমিতি ও সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের দুই শীর্ষ নেতাই মন্ত্রী। ফলে বাস-ট্রাক মালিক ও শ্রমিকেরা রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালী। সাধারণ মানুষের সেবা ও নিরাপত্তা নয়, তাদের মূখ্য উদ্দেশ্য শুধুই মুনাফা অর্জন। শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটি আয়োজিত ‘সড়ক দুর্ঘটনাবিরোধী মানববন্ধন চলাকালীন সমাবেশে’ তিনি এসব কথা বলেন।

সাংবাদিক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা বলেন, বাংলাদেশের পরিবহন শ্রমিকেরা পৃথিবীর মধ্যে সব চেয়ে বেশি উচ্ছৃঙ্খল। মালিকদের বাণিজ্যিক দৃষ্টিভঙ্গি আর শ্রমিকদের বেপরোয়া মনোভাবের কারণে সড়ক দুর্ঘটনা কমানো যাচ্ছে না। সকল ধরনের গণপরিবহনে চাঁদাবাজি রোধ এবং বাসের মধ্যে যাত্রীদের কাছ থেকে ভাড়াবাবদ নগদ টাকা নেওয়া বন্ধ করে স্টপেজভিত্তিক কাউন্টার থেকে অগ্রিম টিকিট বিক্রির পদ্ধতি চালুর দাবি জানান তিনি।

তিনি বলেন, জাতিকে সড়ক দুর্ঘটনার অভিশাপ থেকে মুক্ত করতে হলে শক্ত হাতে সড়ক দুর্ঘটনার লাগাম টেনে ধরতে হবে। এজন্য গণপরিবহন খাতকে সকল প্রকার রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত করে আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। তিনি এক শ্রেণির পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতার মুনাফালোভী বেপরোয়া মনোভাব পরিবর্তনের আহ্বান জানান।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি হাজী মোহাম্মদ শহীদ মিয়ার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আশীষ কুমার দে’র সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন নুরুর রহমান সেলিম, সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা, আজমল হক হেলাল, রাজু আহমেদ, হাসান তারিক চৌধুরী সোহেল ও নিখিল ভদ্র প্রমুখ।

নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটির সভাপতি হাজী মোহাম্মদ শহীদ মিয়া বলেন, সড়ক পরিবহন খাতের নৈরাজ্য বন্ধ করতে হলে পুলিশকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দিতে হবে; যাতে তারা চাপমুক্তভাবে আইনের যথাযথ প্রয়োগ করতে পারেন।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আশীষ কুমার দে বলেন, সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে হলে গণপরিবহন খাতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে হবে। মালিক ও শ্রমিকদের হয়রানি বন্ধে দেশের সকল বাস ও ট্রাক টার্মিনাল চাঁদাবাজি ও অবৈধ দখলদারিত্বমুক্ত করতে হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত