প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ফুলবাড়িয়া-ময়মনসিংহ সড়কে খানাখন্দ

ডেস্ক রিপোর্ট : সড়ক ও জনপথ বিভাগের ফুলবাড়িয়া-ময়মনসিংহ সড়কের বেহাল দশা। দাপুনিয়া ও দেওখোলা বাজারসহ উপজেলার পৌর সদরে ভালুকজান বাজার হয়ে আছিম সড়কের কৈয়ারচালা ফায়ার সার্ভিস স্টেশন পর্যন্ত দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় প্রধান এই সড়কের ইট-সুরকি উঠে গিয়ে সৃষ্টি হয়েছে খানাখন্দের। একটু বৃষ্টি হলেই সড়কটিতে গর্তের সৃষ্টি হয়ে পরিণত হয় ডোবায়।

দায়সারাভাবে ময়মনসিংহের সড়ক ও জনপথ বিভাগ লোক দেখানো মেরামত কাজ করলেও ভালুকজান বাজার এলাকায় প্রায় দুই কিলোমিটার, দাপুনিয়া বাজার ব্রিজের এপারে এক কিলোমিটার, দেওখোলা বাজারে এক কিলোমিটারসহ ফুলবাড়িয়া-ময়মনসিংহ প্রধান এই ২১ কিলোমিটার সড়কের প্রায় আট কিলোমিটার মেরামত না করায় চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বর্ষা মৌসুম আসছে, না জানি সড়কটির কী হাল হয়- এমন মন্তব্য করছেন সড়ক দিয়ে চলাচলকারী ভুক্তভোগীরা।

পৌনে পাঁচ লাখ মানুষের জেলা সদরে যাতায়াতের একমাত্র ফুলবাড়িয়া-ময়মনসিংহ সড়কটি মেরামত না করায় বড় বড় গর্তে পরিণত হয়ে যান চলাচলে যেমন বিঘ্ন সৃষ্টি হচ্ছে তেমনি সৃষ্টি হয় দীর্ঘ যানজটের। প্রতিদিন সড়কটি দিয়ে উপজেলার দক্ষিণাঞ্চলের এনায়েতপুর, ভবানীপুর, আছিম পাটুলী, কালাদহ, বাকতা, রাঙামাটিয়া ও নাওগাঁও ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ একমাত্র এ সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন উপজেলা সদর হয়ে গন্তব্যস্থল ময়মনসিংহ বিভাগীয় শহরে যাতায়াত করে থাকে। ভাঙাচোরা এ সড়ক দিয়ে যেতে হয় ভালুকজানে ফায়ার সার্ভিস অফিসের অগ্নিনির্বাপক গাড়ি। কোথাও কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি দ্রুতগতিতে ঘটনাস্থলে পৌঁছতে পারছে না।

স্থানীয়ভাবে সড়ক ও জনপথ বিভাগের কোনো অফিস না থাকায় যোগাযোগ করেও কেউ কোনো প্রতিকার পাচ্ছে না।

সংসদ সদস্য মোসলেম উদ্দিন এবং পৌর মেয়র গোলাম কিবরিয়া বিষয়টি জনগুরুত্বপূর্ণ বিধায় সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার অবহিত করেছে বলে তারা জানান, ইউএনও লীরা তরফদার জানান, প্রতি মাসের মাসিক সমন্বয় কমিটির সভায় এ সড়কটি বেহাল অবস্থায় সংস্কারের জন্য সড়ক ও জনপথ বিভাগকে টেলিফোনে বারবার তাগিদ দেওয়া হলেও একটু-আধটু লোক দেখানো কাজ করে পরে আবার কাজ বন্ধ করে চলে যায়। সূত্র : সমকাল

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত