প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আসামে একজনও বাংলাদেশি নেই : বাংলাদেশি উপ-হাইকমিশনার (ভিডিও)

সাজিয়া আক্তার: বাংলাদেশের প্রতিবেশী ভারতের রাজ্য আসামে জাতীয় নাগরিক নিবন্ধন এনআরসিতে অনিশ্চয়তার মুখে স্থানীয় ২৫ লাখ বাঙালি। বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারি আখ্যা দিয়ে তাদের নাগরিক নিবন্ধন না দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে রাজ্যের বিজেপি সরকার। কিন্তু আসামে বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশনের স্পষ্ট বক্তব্য এরা আদৌ বাংলাদেশি নয়।

বিদেশি অনুপ্রদেশকারি আখ্যা দিয়ে ১৯৮৫ সালে বহিরাগত খেতাব স্লোগানের উৎপত্তি হয় আসামে। এই ইস্যুতে ২০১২ সালে আদলতে রিট পিটিশন দায়ের করে মিথিল ছাত্র সংস্থা আশু। এরই প্রেক্ষিতে আদালত সিদ্ধান্ত নেয় ১৯৭১ সালের ২৫ শে মার্চের আগে থেকে যেসব বাংলাদেশি ভারতে প্রবেশ করার প্রমাণপত্র দিতে পারবে কেবল তাদেরই ভারতীয় নাগরিক হিসেবে গণ্য করা হবে। অনুপ্রবেশ ইস্যুকে কেন্দ্রকরে চলতি বছর আসামে বিজেপি সরকার গঠনের পর জাতীয় নাগরিক নিবন্ধন এনআরসি হালনাগাদের উদ্যোগ নেয়। আসামে ৩ কোটি ৩০ লাখ নাগরিকের মধ্যে এনআরসির প্রথম খসড়া তালিকায় নাম আসে ১ কোটি ৯০ লাখের। বাদ পরে ১ কোটি ৩৯ লাখ মানুষের নাম। আগামী জুনে প্রকাশিত হবে চূড়ান্ত তালিকা। তবে তাতে ২৫ লাখেরও বেশি বাঙালির নাম আসামের নাগরিক হিসেবে না হয়ার আশঙ্কা থাকছে।

এদিকে এনআরসি তালিকা থেকে বাদ পরা বাঙালিদের অনুপ্রবেশকারী আখ্যা দিয়ে বিতারিত করার দাবি চলছে ক্ষমাতাশীল বিজেপি।

আসাম সংসদের ডেপুটি স্পিকার ও বিজেপি বিধায়ক দিলীপ কুমার বলেন, এখন প্রশ্ন হল যারা বাইরে তাকবে তাদের কী হবে, সেটা সরকার নিজে সিদ্ধান্ত নিক। একটি রাষ্ট্র থেকে লাখ লাখ মানুষ আসবে আর পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্র কতদিন বহন করবে। আবার এনআরসি তালিকা থেকে বাদ পরা কেউই বাংলাদেশি নয় বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের সহকারী হাই কমিশনার কাজী মুনতাসির মোর্শেদ।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের নামটা কোনো কারেণ এর সাথে জড়িয়ে আছে, ওরা বলছে আমরা বাংলাদেশি শনাক্ত করতে চাই। সেক্ষেত্রে আমরা সরকারিভাবে অত্যন্ত গভীরভাবে বিষয়টি ফলো করছি। ব্যক্তিগত ভাবে মনে করি এখানে একজনও সঠিক বাংলাদেশি নেই।

অনুপ্রবেশকারী বাংলাদেশি বলে আখ্যায়িত করা হলেও ঢাকার সঙ্গে এখন পর্যন্ত কোনো আনুষ্ঠানিক যোগাযোগ করেনি আসাম।

আসামে যুগ যুগ ধরে জিয়ে রাখা বাঙালিদের নাগরিত্ব সংকট বাংলাদেশির জন্য কোনো স্বপ্নের জন্ম দিল কিনা সেই প্রশ্নই সময়ের সাথে সাথে আরো জোরালো হয়ে উঠবে।

কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এখন থেকেই এই সংকট মাথায় রেখে বাংলাদেশ সরকারের উচিত তৎপরতা শুরু করা।

নিউজ ২৪ থেকে মনিটরিং

 

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত