প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কর্মী প্রেরণে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম বাড়ানো হচ্ছে: প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী

তরিকুল ইসলাম : প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেছেন, গণতান্ত্রিক সরকারের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে অপ্রতিরোধ্য ও সমুন্নত রাখতে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরীর কোন বিকল্প নেই। লক্ষ্য বাস্তবায়নে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরী করে বিদেশে প্রেরণের জন্য প্রশিক্ষণ কার্যক্রম প্রতিনিয়ত সম্প্রসারিত করা হচ্ছে। এতে করে বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান অগ্রগতি তরান্বিত হবে।

বুধবার প্রবাসী কল্যাণ ভবনের ব্রিফিং সেন্টারে জাপানি ভাষা প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারীদের ১ম ব্যাচের কোর্স সমাপনী ও ২য় ব্যাচের কোর্স উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো’র মহাপরিচালক মোঃ সেলিম রেজা, বিএমইটি’র পরিচালক (প্রশিক্ষণ পরিচালনা) ড. নূরুল ইসলাম এবং আইএম জাপান ও ঢাকাস্থ জাপান দূতাবাসের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, প্রবাসী বাংলাদেশীদের কষ্টার্জিত মূল্যবান বৈদেশিক মূদ্রা প্রেরণের হার দেশের অর্থনীতির ভিত্তিকে সুদৃঢ় করেছে। জাপানগামী টেকনিক্যাল ইনটার্নদের উদ্দেশ্যে বলেন, যে সকল প্রশিক্ষণার্থীরা জাপান যাচ্ছে তাদেরকে দেশের মর্যাদাকে অক্ষুন্ন রেখে নির্দিষ্ট সময় শেষে দেশের জন্য সম্মান নিয়ে ফিরবে হবে। জাপানের কৃষ্টি-কালচারে খাপ খাইয়ে নিতে একটু কষ্ট হলেও তবে ধৈর্য্য ধারন কওে সেখানে থাকতে হবে। টেকনিক্যাল ইন্টার্ন নিয়োগ সংক্রান্ত চুক্তিসমূহ টেকনিক্যাল ইন্টার্নগণ যথাযথভাবে প্রতিপালন করলে বাংলাদেশ হতে বিনা অভিবাসন ব্যয়ে জাপানে অনেক বেশী হারে টেকনিক্যাল ইন্টার্ন প্রেরণ করা সম্ভব হবে। কারিগরি খাতে বাংলাদেশ থেকে জাপানে কর্মী নেয়ার বিষয়ে গত ২৯ জানুয়ারি টোকিওতে সমঝোতা স্বারক স্বাক্ষরিত হয়।

এতে করে জাপানে ৭৭টি পেশায় ১৩৭টি কাজের জন্য বাংলাদেশ থেকে কর্মী যাওয়ার সুযোগ তৈরি হলো। এতে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. নমিতা হালদার এনডিসি বলেন, জাপানে টেকনিক্যাল ইনটার্ন পাঠানোর ক্ষেত্রে আমরা যোগ্যতা নিয়ে আপোষ করিনি। কারণ, ১ জন কর্মী জাপানে যাওয়া আর ১০জন মধ্যে প্রাচ্য যাওয়া সমান। যারা জাপন যাচ্ছে তাদেরকে খেয়াল রাখতে হবে এটা শুধু পাঁচ বছরের জন্যই যাচ্ছে। প্রলভনে পরে কোনো ভাবেই যেনো সেখানে থেকে না যায় এবং রাজনৈতিক আশ্রয় না চায়। এসব করলে দেশের বদনাম হবে। পরবর্তীতে সেখানে লোক পাঠানো কঠিন হয়ে পরবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত