প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিশ্বব্যাপী বড় ধরনের হ্যাকিংয়ের আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা

হ্যাপী আক্তার : আবারো বিশ্বজুড়ে বড় ধরনের হ্যাকিংয়ের আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। দেশীয় সাইবার অপরাধ অনুসন্ধান প্রতিষ্ঠান, ক্রাইম রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালাইসিস ফাউন্ডেশনের দাবি, বেশ কিছু গোপন টুইটার বার্তা ও কথোপকথনে ‘গ্যান্ডক্র্যাব র‌্যানসামওয়ার’ নামে শক্তিশালী একটি ম্যালওয়ার দিয়ে সাইবার হামলার পরীক্ষায় সফল হওয়ার প্রমাণ মিলেছে। এছাড়া, ইন্টারনেটের ডিপ ওয়েভে ছড়িয়ে আছে এ সংক্রান্ত কোডিং বার্তা। তাই সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা দ্রুত নিশ্চিতের পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

সাইবার অপরাধ বিষয়ে অনুসন্ধানভিত্তিক দেশীয় প্রতিষ্ঠান ক্রাইম রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালাইসিস ফাউন্ডেশন-ক্র্যাফের আশঙ্কা শক্তিশালী ম্যালওয়্যার দিয়ে ফের চালানো হতে পারে এ ধরনের হামলা। সম্প্রতি ডেভিড মন্টেনিগ্রো নামের এক টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে দাবি করা হয়েছে, গ্যান্ডক্র্যাব নামে একটি ভয়ানক ম্যালওয়ার তৈরির পর, এরইমধ্যে চালানো হয়েছে পরীক্ষামূলক হামলা।

হ্যাকারদের টুইটার কথোপকথনে সেসব পরীক্ষায় সফল হওয়ার প্রমাণ মেলে। তথ্যপ্রযুক্তির অন্ধকার জগৎ ডিপ ওয়েবে পাওয়া গেছে গ্যান্ডক্র্যাব ম্যালওয়ারে আক্রান্ত কম্পিউটারের কোডিং ভাষার অনুলিপিও। যার শিকার এক বাংলাদেশিকে খুঁজে পাওয়ার দাবি করেছে ক্র্যাফ।

ক্রাফের আশঙ্কা, চলতি বছরের যেকোন সময় চালানো হতে পারে গ্যান্ডক্র্যাব ম্যালওয়্যার হামলা।

ক্রাইম রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালাইসিস ফাউন্ডেশনের ডিজিটাল ফরেনসিকের হেড ইশরাক হাসান নাবিল বলেছেন, সাইবার হামলাকারীদের রিপোর্ট বা টুইটগুলো তাদের যে আপডেটগুলো দিচ্ছে তারা, সে তথ্য অনুযায়ী আমাদের সেটাই বলছে ভার্সন থ্রিটি ২.৩ আপডেট হওয়া মাত্রই হামলাটি হবে। শঙ্কার কথা হচ্ছে ইতোমধ্যেই ভার্সনটি ২.১ চলছে।

সাইবার অপরাধ নিয়ন্ত্রণে দেশের সবচেয়ে শক্তিশালী গবেষণাগারটি সিআইডির। বৈশ্বিক বিবেচনায় তা আহামরি কিছু না হলেও হামলা ঠেকাতে নিজেদের সামর্থ্যে আস্থা রয়েছে বলছেন পুলিশের এ গোয়েন্দা বিভাগ।

সিআইডি’র বিশেষ পুলিশ সুপার মোল্যা নজরুল ইসলাম বলেছেন, আমাদের ল্যাব আছে, গবেষণার যে নিয়মকানুন আছে ও পর্যবেক্ষণের জন্য লোক আছে। কিন্তু চাপ নেই। কম্পিউটারের গুরুত্বপূর্ণ তালিকা আছে জাতীয় পর্যায়ে। আমাদের দেশে যে বিশেষজ্ঞরা আছেন তাতেই যথেষ্ট।

বুয়েট কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. ইউনুস আলী বলেছেন, সাইবার হামলা শিকার হওয়ার আগেই কম্পিউটার জাতীয় ডিভাইস ব্যবহারে ব্যাক্তিগতভাবে সচেতন হতে হবে।

ওয়ানাক্রাই র‌্যানসমওয়্যার ২০১৭ সালে বিশ্বজুড়ে সবচেয়ে আলোচিত সাইবার হামলা নাম। গেলো বছরের মে মাসে প্রায় ১৫০টি দেশের তিনলাখেরও বেশি কম্পিউটারে একযোগে চালানো হয় এই হামলা। যুক্তরাষ্ট্রের এফবি আইয়ের ডাটাবেজ ছাড়াও যার শিকার যুক্তরাজ্য, চীন, রাশিয়া, স্পেন, ইতালির মতো বিশ্বের উন্নত তথ্যপ্রযুক্তির দেশের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান। বাদ পড়েনি বাংলাদেশও।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের তথ্য বলছে, ২০২১ সাল নাগাদ সাইবার হামলায় বিশ্বব্যাপী আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াবে এক ট্রিলিয়ন ডলার। সূত্র : চ্যানেল টোয়েন্টিফোর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত