প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আদালতের মাধ্যম ছাড়া তারেক রহমানকে ফেরত নিয়ে আসা যাবে না

বর্তমান সরকারের বক্তব্য একরকম এবং আইনের বক্তব্য অন্য রকম। আইন চলবে আইনের গতিতে। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য দুটি দিক রয়েছে। একটি রাজনৈতিকভাবে এবং অন্যটি আইনিগতভাবে। আমাদের রাজনৈতিক সংস্কৃতিটি এমন হয়েছে যে, ক্ষমতাসীন পক্ষ বিরোধী পক্ষকে নিশ্চিহ্ন করতে চায়। গণতান্ত্রিক দেশ হিসাবে এটি ঠিক নয়। গণতান্ত্রিক দেশ হিসাবে বিরোধী দলকে ক্ষমতাসীন দলের টলার করা প্রয়োজন কিন্তু কোন দল বিরোধীদলকে সহ্য করতে পারে না। বাংলাদেশে গণতন্ত্র সে হিসাবে শক্তিশালি হয়নি।

বাংলাদেশে রাজনৈতিক ভাবে তারেক রহমানকে মামলা দেওয়া হয়েছে। সেটি জেনে যুক্তরাজ্যের সরকার তাকে থাকার অনুমতি দিয়েছে। তিনি যুক্তরাজ্যের অনুমতি নিয়ে সে দেশে আছেন। যুক্তরাজ্য জানে, তারেক জিয়াকে বর্তমান সরকার রাজনৈতিকভাবে মামলা দিয়েছে। মামলাটি তার অনুপস্থিতিতে দেওয়া হয়েছে। তারেক রহমানকে দেশে ফেরত পাঠানোর জন্য দুই দেশের আইনের মাধ্যমে আনা যাবে, এ ছাড়া আনা যাবে না। আইনের মাধ্যমে যেটি সিদ্ধান্ত হয়, সেটি হবে।

বর্তমান সরকার এ দেশের আইনের মাধ্যমে যদি কোন আবেদন করে, তখন যুক্তরাজ্য তাদের দেশের আইনের মাধ্যমে সেটি বিচার বিবেচনা করবে। যুক্তরাজ্য আইনের বাইরে কিছু করবে না। যুক্তরাজ্যের আদালত যে সিদ্ধান্ত দিবেন তাই মানতে হবে। আদালত যেটি সিদ্ধান্ত দিবে সেটি চুড়ান্ত হিসাবে কার্যকর হবে। ২২ এপ্রিল পরারাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, তারেক রহমান পাসপোর্ট ফেরত দিয়ে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব ছেড়ে চলে গিয়েছেন। কিন্তু ২৩ এপ্রিল বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেছেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী যে কথা বলেছেন, সেটি মিথ্যা কথা। তিনি বলেন, পাসপোর্ট জমা দিয়ে থাকলে সেটি দেখিয়ে প্রমাণ করে দেওয়া হোক।

পরিচিতি : আইনজীবি, সুপ্রিমকোর্ট/ মতামত গ্রহণ : রাশিদুল ইসলাম মাহিন/ সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত