প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মাতৃস্নেহে বেড়ে উঠছে ওরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : সাভারের রানা প্লাজা ট্র্যাজেডির পঞ্চম বর্ষপূর্তি আজ। ভয়াবহ এ দুর্ঘটনায় হতাহত শ্রমিকদের পরিবারের ৪৪ শিশুর ঠাঁই হয়েছে গাইবান্ধার ফুলছড়ির ‘অরকা হোমসে’। এ প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া, খেলাধুলা, বিনোদন ও মাতৃস্নেহে বেড়ে উঠছে তারা।

ওল্ড রাজশাহী ক্যাডেট অ্যাসোসিয়েশন নামে একটি প্রতিষ্ঠান ২০১৪ সালের ২২ ডিসেম্বর ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রামে অরকা হোমস প্রতিষ্ঠা করে। তাদের সহায়তা করছে বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রফতানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ)। তিনতলা ভবনবিশিষ্ট অরকা হোমসে লাইব্রেরি ও বিনোদনের ব্যবস্থাসহ রয়েছে বড় খেলার মাঠ। এখানে আশ্রয় পাওয়া ৪৪ শিশুর মধ্যে ২৩ জন ছেলে ও ২১ জন মেয়ে। তাদের লেখাপড়ার জন্য পাশেই রয়েছে হোসেনপুর মুসলিম একাডেমি। এখানে তৃতীয় থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করছে তারা।

অরকা হোমসে বেড়ে ওঠা মোছা. শাকিলা আক্তার রুবির গ্রামের বাড়ি গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার পুঠিমারীতে। মা নেছা বেগম রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় মারা যান। শাকিলা জানায়, সে বড় হয়ে পুলিশ অফিসার হতে চায়। মো. ওমর ফারুকের বাড়ি পাবনা জেলার রুদ্রগাছী গ্রামে। তার মা আম্বিয়া খাতুন একই দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন। আত্মীয়স্বজনের কাছে ঠাঁই না হওয়ায় অরকা হোমসে আশ্রয় নিয়ে পড়ালেখা করছে সে। সমকাল

বড় হয়ে ডাক্তার হতে চায় ফারুক।

সিরাজগঞ্জ জেলার পশ্চিম নলকান্দায় বাড়ি আছমা আক্তারের। তার মা ঝর্ণা বেগম ও বোন স্বপ্না বেগম কাজ করতেন রানা প্লাজায়। সেখানে ভবন ধসে মারা যান মা ঝর্ণা আর গুরুতর আহত হন বোন স্বপ্না। রোজগারের কেউ না থাকায় আছমা অরকা হোমসে আশ্রয় নিয়েছে। বড় হয়ে শিক্ষক হতে চায় সে।

এখানে বড় হওয়া অন্য শিশুদের অনেকের মা-বাবা ওই দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। কেউ মারা গেছেন, কারও খোঁজ পাওয়া যায়নি।

অরকা হোমসের তত্ত্বাবধায়ক নুর জাহান বেগম বলেন, এসব শিশুকে মাতৃস্নেহ দিয়ে দেখাশোনা করছেন। তিনি নিঃসন্তান। এসব শিশুই তার সন্তানের মতো।

আরেক তত্ত্বাবধায়ক মাসুদ রহমান বলেন, ওই শিশুদের মা-বাবার অভাবটা পূরণ করতে পারছি, এটাই বড় কথা। প্রথম যখন ওরা এখানে আসে, তখন তাদের সামাল দিতে হিমশিম খেতে হয়েছে। এখন তারা পড়ালেখা, খেলাধুলাসহ সব ধরনের কাজে পারদর্শী হয়ে উঠেছে।

২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল ঘটে রানা প্লাজা ভবন ধসের ঘটনা। এতে এক হাজারের বেশি নারী-পুরুষ নিহত হন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত