প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বড়লেখার আগর-আতর জয় করেছে মধ্যপ্রাচ্য

রুহুল আমিন : আগর-আতর বিপ্লব নিয়ে এসেছে মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার শিমুলীয়া ও সুজানগর গ্রামে । গ্রামের মানুষের মাঝে নিয়ে এসেছে অর্থনীতির বৈপ্লবিক পরির্বতন ।যতদুর চোখ যায় আগর গাছ । গ্রামে অসংখ্য আতরের কারখানা রয়েছে । শিমুলীয়া ও সুজানগরের আগর-আতর জয় করেছে মধ্যপ্রাচ্যের বাজার।

আগর-আতরেই স্বপ্ন দেখছেন,বড়লেখা ,জুড়ি ও বিয়ানীবাজার উপজেলার মানুষ রাস্তা ঘাট সবজায়গায় আগর গাছ আর বাড়িতে বাড়িতে আতরের কারখানা। গুনলে শ তিনেকের মতো হবে। তবে অধিকাংশই ছোট ও মাঝারি আকারের। এখানকার তৈরি আতর মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে ভোক্তাদের কাছে পৌঁছে যাচ্ছে। চাহিদা ভালো থাকায় প্রচুর পরিমাণে আগর কাঠও রপ্তানি হচ্ছে। মধ্যপ্রাচ্যের মানুষ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে এসব কাঠ ধূপের মতো জ্বালিয়ে সুগন্ধি তৈরি করে।

শিমুলীয়া গ্রামের স্থানীয় আগর থেকে আতর উৎপাদনকারী ব্যবসায়ী হাজী আবদুল আজিজ(৫০) জানান, ১৯৩০ সালেরও আগে তার দাদা সৈয়দ আবদুল মজিদ প্রথম আগর থেকে আতর উৎপাদন করে বাজারজাত করণের কাজ শুরু করে দেশের মধ্যে তার বিক্রী করতেন । এরপর তার দুই ছেলে আরব উদ্দীন ও আজমল শেঠ বাপের দেখানোর আগর-আতর ব্যবসা করেন। তার চাচা আজমল শেঠ ১৯৫০ সালের দিকে পরিবার নিয়ে ভারতের আসামে চলেগেলে। তার পিতা আরব আলী তার চারছেলের পরিবার নিয়ে একাই তার ব্যবসা চালিয়ে যান। ২০০৯ সালে আরব আলীর মৃত্যুর পর তার তিন ছেলে বর্তমানে আগর-আতরের ব্যবসা করে যাচ্ছেন।

আজমল শেঠের চার ছেলে সবাই বর্তমানে আগর-আতরের অন্তর্জাতিক ব্যবসা সাথে জড়িত । শুধু তাই নয় আজমল শেঠের পরিবার ভারতের আলোচিত ব্যবসাযী ও রাজনৈতিক পরিবার ।

আজমল শেঠের পুত্র মাওলানা বদরুদ্দীন আজমল আসামের সংখ্যালঘুর অবিসংবাদিত নেতা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে চলেছেন তিনি ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের নেতা এবং লোকসভায় ধুবরি থেকে নির্বাচিত সদস্য। পারিবারিক ব্যবসা হলো পারফিউম বা সুগন্ধি আর তার সেটা দুই হাজার কোটি রুপির ব্যবসা।

জানাগেছে, কয়েক শ বছর ধরেই সেখানকার লোকজন আগর-আতর ব্যবসায়ে আছেন। বছরে বছরে চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় শিল্পটির সঙ্গে নতুন করে যুক্ত হচ্ছেন অনেকে। পাশের জুড়ি,বিয়ানীবাজার উপজেলায়ও ছড়িয়ে পড়েছে এই সুঘ্রাণ, অর্থাৎ গড়ে উঠছে নতুন নতুন কারখানা। পাহাড়ে পাহাড়ে বনবিভাগের সহযোগিতায় সিলেটের বনে প্রচুর আগর বাগান গড়ে উঠেছে ।স্থানীয়দের মাঝে বড় অকাড়ে আগর বাগান করা জোক বাড়ছে ।

আগর উৎপাদনকারীদের দেশের মধ্যে বাংলাদেশের আবস্থান তুলনামূলক পিছনে এখানকার আগর -আতর উৎপাদনের ইতিহাস ৪০০শ বছর পুরাতন ভারতের সিমান্তবর্তী জেলা হওয়াতে মৌলভীবাজারে আসেপাশে আগর চাষের জ্ঞান ও প্রযুক্তি বিনিময় হয় । সেই থেকে আগরের মৌলভীবাজার জেলায় আগর নিয়ে জেলাবাসির আগ্রহ জাগে ।যা এই সময়ে এসে জাতীয় অর্থনীতিতে সম্ভাবনা জাগিয়েছে । সম্ভাবনাময় আগর-আতর ছড়িয়ে পড়েছে সারা দেশে ।

(মৌলভীবাজার বড়লেখা থেকে ফিরে )

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত