প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চট্টগ্রামের মহাসমাবেশ নিয়ে উচ্ছাসিত জাতীয় পার্টির নেতা কর্মীরা

সাজিয়া আক্তার: নির্বাচনকে সামনে রেখে চট্টগ্রামে সরোব জাতীয় পার্টি। শরীক দলগুলো নিয়ে গঠিত সম্মিলিত জাতীয় জোটের ব্যানারে আসন ভিত্তিক প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে দলটি। চট্টগ্রামে ১৬ টি আসনে সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকাও প্রায় চূড়ান্ত। দলীয় প্রধানের উপস্থিতিতে চট্টগ্রামের বিশাল সমাবেশের পর প্রায় উচ্ছাসিত জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা।

প্রায় পাঁচ বছর পর চট্টগ্রামের লালদীঘির হাটে সমাবেশ করেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ। গেল ৭ এপ্রিল এই মহাসমাবেশে সমাগম হয় লক্ষাধিক মানুষের। ১০ দিনের নোটিশে এত বড় মহাসমাবেশ করতে পেরে উচ্ছাসিত চট্টগ্রামের জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা। তাদের মধ্যে এই মহাসমাবেশ আগামি নির্বাচনে মহাজোট থেকে বের হয়ে আলাদা নির্বাচনের ইঙ্গিত। সে হিসেবে জাতীয় জোটের ব্যানারে চলছে প্রস্তুতি।

চট্টগ্রামের মহানগর জাতীয় পার্টি আহবায়ক সোলায়মান আলম শেঠ বলেন, নির্বাচনের আগে আরো একটা সমাবেশ আমরা করব, মানুষ পরিবর্তন চায়, পরিবর্তনের জন্য জাতীয় পার্টি, উন্নয়নের জন্য জাতীয় পার্টি।

জোট নেতারা বলছেন, আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে এরই মধ্যে আসন ভিত্তিক প্রস্তুতি শুরু করেছে সম্মিলিত জাতীয় জোট।
বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট সভাপতি এম এ মতিন বলেন, চট্টগ্রাম জাতীয় জোটের জন্যই অপেক্ষা করছিল। এখন আমার মনে হয় পুরো চট্টগ্রাম একাকার হয়ে যাবে জাতীয় নির্বাচন হলে।

মহাসমাবেশে চট্টগ্রামের- ৯ আসনে জিয়াউদ্দিন আহম্মেদ বাবলুকে প্রার্থী ঘোষণা করে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান। চট্টগ্রামের বাকি-১৫ আসনে প্রার্থী অনেকটা চূড়ান্ত বলে দাবি জোট নেতাদের।

সম্মিলিত জাতীয় জোট সমন্বয়ক স উ ম আব্দুল সামাদ বলেন, সারাদেশে ৭৪টি আসনে তিনজন করে প্রার্থীর তালিকা দিয়েছে, তিন জনেই নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত। যিনি পার্টি থেকে গ্রিন সিগনেল পাবে তিনি নির্বাচনে আসবেন।

ইসলামি ফ্রন্টসহ শরীক দলগুলো নিয়ে আলাদা জোট গঠন করায় জাতীয় পার্টি সাংগঠনিকভাবে আগের থেকেও শক্তিশালী হয়েছেন।

চট্টগ্রামের সব উপজেলা ইউনিয়ন ওয়ার্ডে নতুন কমেটি গঠন করা নিয়েও তৎপরতা শুরু করেছে জাতীয়পার্টি।

সূত্র: যমুনা টিভি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত