প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বরিশালে মুক্তিযোদ্ধার পরিবারকে মামলা দিয়ে হয়রানী করছে রাজাকার পুত্র

স্বাধীনতা বিরোধী চিহ্নিত রাজাকার (লুটার) পুত্রের বিরুদ্ধে এক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের পরিবারকে তিনটি মিথ্যে মামলা দিয়ে হয়রানি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বরিশাল আদালতে দায়ের করা ওইসব মামলায় এখন দিশেহারা হয়ে পরেছেন মুক্তিযোদ্ধার গোটা পরিবার। মিথ্যে মামলা থেকে রেহাই পেতে তারা স্থানীয় সংসদ সদস্য ও প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

জেলার গৌরনদী উপজেলার পিঙ্গলাকাঠী গ্রামের বাসিন্দা এবং মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার প্রয়াত হামিদ সরদার ওরফে হামেদ কমান্ডারের পুত্র আনসার ও ভিডিপি’র নলচিড়া ইউনিয়ন কমান্ডার মো. আইয়ুব আলী সরদার জানান, একই গ্রামের চিহ্নিত লুটার ও রাজাকার মৃত মহব্বত আলী সরদারের পুত্র ৩নং ওয়ার্ড কৃষকদলের সাবেক সভাপতি সিরাজ সরদারের ভাই প্রভাবশালী বিএনপি নেতা মিজানুর রহমান জামাল সরদারের সাথে দীর্ঘদিন থেকে তাদের জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। পূর্ব বিরোধের জেরধরে কারণে অকারনে তাদের পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে গত ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২৮ মার্চ ও সর্বশেষ ৩১ মার্চ বরিশাল বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

আইয়ুব আলী সরদার আরও জানান, হত্যার হুমকির অভিযোগ এনে ২৮ ফেব্রুয়ারীর মামলায় ঘটনার তারিখ ও সময় উল্লেখ করা হয়েছে ২৬ মার্চ সকাল সাড়ে নয়টা। অথচ ওইসময় তিনি (আইয়ুব আলী) আনসার ও ভিডিপি’র ইউনিয়ন কমান্ডার হিসেবে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে উপজেলা সদরের প্যারেডে উপস্থিত ছিলেন। যার প্রমান স্বরূপ উপজেলা প্রশাসন তাকে প্রত্যায়নপত্রও দিয়েছেন।

আইয়ুব আলী জানান, গত ৩১ মার্চ নলচিড়া এলাকায় বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে পোস্টার লাগাতে গিয়ে বিএনপি নেতা মিজানুর রহমান জামাল সরদার ও তার ৩/৪জন সহযোগীরা স্থানীয়দের গণধোলাইর শিকার হয়েছে। পুরো ঘটনাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করে পূর্ব বিরোধের জেরধরে তার (জামাল) ওপর হামলার অভিযোগে তাকেসহ (আইয়ুব আলী) তার পুত্র ও ভাইদের আসামি করে পূর্ণরায় আদালতে আরও একটি মামলা দায়ের করা হয়। অসহায় মুক্তিযোদ্ধার পরিবার এসব মিথ্যে মামলা থেকে রেহাই পেতে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত