প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আসিফাকে ধর্ষণ করা হয়নি, দাবি পুলিশের

জম্মু ও কাশ্মীরের পুলিশ বলছে ৮ বছরের বালিকা আসিফাকে ধর্ষণ করা হয়নি। এক বিবৃতিতে পুলিশের এধরনের বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। পুলিশ দাবি করছে যা ঘটছে বা আসিফাকে হত্যার আগে ধর্ষণ করা হচ্ছে এমন দাবি সত্য নয়।

গত ১০ জানুয়ারি আসিফা নিখোঁজ হয়। এরপর তাকে এক সপ্তাহ ধরে স্থানীয় এক মন্দিরে আটকে রেখে ধর্ষণ করার পর পাথর ছুড়ে হত্যার আগে আবারও ধর্ষণ করা হয়েছিল। জম্মু ও কাশ্মীরের কাঠুয়া জেলার রাসানা গ্রামে আসিফাকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনা ঘটে। এতে নেতৃত্ব দেন এক মন্দিরের তত্ত্বাবধায়ক ও দুই স্পেশাল পুলিশ কর্মকর্তা।

অভিযুক্তরা ছিলেন, স্থানীয় মন্দিরের তত্ত্বাবধায়ক সাঞ্জি রাম, স্পেশাল পুলিশ কর্মকর্তা দীপক খাজুরিয়া ও সুরেন্দ্র বর্মা, সাঞ্জি রামের বন্ধু পরভেশ কুমার ওরফে মন্নু, রামের নাবালক ভাতিজা ও ছেলে বিশাল জঙ্গোত্র ওরফে শম্মা। পুলিশের দেয়া ১৫ পৃষ্ঠার এক অভিযোগপত্রে আসিফাকে হত্যার বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হয়, যাতে উল্লেখ ছিল মুসলিম বাখেরওয়াল সম্প্রদায়ের শিশু আসিফাকে অপহরণ করে এক সপ্তাহ আটকে রেখে ধর্ষণের পর পাথর ছুড়ে হত্যা করা হয়।

অভিযোগপত্রে আরও বলা হয়, রাসানা অঞ্চল থেকে সংখ্যালঘু যাযাবর সম্প্রদায়ের মানুষদের তাড়িয়ে দেয়ার জন্যই পরিকল্পিতভাবে শিশুটি অপহরণের পর ধর্ষণের করে হত্যা করা হয়। এও বলা হয় এধরনের বর্বরোচিত ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত মন্দির তত্ত্বাবধায়ক সাঞ্জি রাম তদন্ত কর্মকর্তাদের ঘটনার তদন্ত প্রভাবিত করতে হেড কনস্টেবল তিলক রাজ ও সাব-ইন্সপেক্টর আনন্দ দত্ত অভিযুক্ত সাঞ্জি রামের কাছ থেকে চার লাখ রুপি ঘুষ দিয়ে ঘটনার প্রমাণ নস্যাৎ করেছেন। এনডিটিভি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত