প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মোরেলগঞ্জে একটি পুলের ভগ্নদশা, এলাকাবাসীর ভোগান্তি চরমে

এস.এম. সাইফুল ইসলাম কবির, বাগেরহাট: বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার পশুরবুনিয়া গ্রামের একটি পুলের ভগ্নদশার কারনে এলাকাবাসী চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। ভোগান্তির শিকার হচ্ছে শিশু শিক্ষার্থী সহ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শত শত শিক্ষার্থী । আসছে বর্ষা মৌসুমে এ পুল থেকে কোন লোক চলাচল করতে পারবেনা এ আশঙ্কায় রয়েছে এলাকাবাসী।

খাউলিয়া ইউনিয়নের পশুরবুনিয়া গ্রামের মাঝখান দিয়ে বয়ে যাওয়া খালের এ পুলটি অত্যন্ত জনগুরুত্বপূর্ণ। দীর্ঘ ৭ বছর যাবৎ পুলটি বেহাল অবস্থায় পড়ে আছে। এ পুল দিয়ে প্রতিদিন শত শত লোক ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। প্রায়ই ঘটছে ছোট খাটো দূর্ঘটনা। ছোট ছোট ছেলে-মেয়ে, শিক্ষার্থী ও মহিলারা এ সেতু দিয়ে চলতে ভয় পায়। শিশু শিক্ষার্থীদের কোলে করে এ সেতু পার করাতে হয়। যে কোন মুহুর্তে ভেঙ্গে পড়ে বড় কোন দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা রয়েছে। পুলের অধিকাংশ খাম্বা ও তক্তা খোঁয়া গেছে। স্থানীয় লোকজন নানাভাবে পুলটি জোড়াতালি দিয়ে সচল রাখার ব্যর্থ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। পুলটি খাম্বা ও তক্তা বয়সের ভারে নাজুক হয়ে গেছে। স্থানীয় লোকজন জানায়, এখন আর পুলটি জোড়াতালি দিয়ে রাখা সম্ভব নয়। এখন প্রয়োজন পুন:নির্মাণ।

এ ইউনিয়নের সন্ন্যাসী বাজারে রয়েছে ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এসপি রাশিদিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সন্ন্যাসী মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, এ আর খান ডিগ্রী কলেজ,ব্যাংক-বীমা সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান। এ গ্রামের লোকজন ও শিক্ষার্থীদের এ ঝুঁকিপূর্ণ পুল পারাপার হয়ে যেতে হয়। এর মধ্যে পশুরবুনিয়া গ্রামেই রয়েছে স্কুল, কলেজ সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।

বর্ষা মৌসুমের আগেই নিজ অর্থায়নে বাঁশ ও সুপারি দিয়ে চলাচলের মোটামুিট ব্যবস্থা করবেন বলে ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল মালেক তালুকদার জানান। তিনি বলেন, তার ওয়ার্ডেই এ পুলটির অবস্থান। পুলটির এ নাজুক অবস্থার বিষয়টি ইউপি চেয়ারম্যানকে অবহিত করা হয়েছে।

স্থানীয় ছাত্র অভিভাবক মো. দুলাল হাওলাদার বলেন, জনগুরুত্ব বিবেচনায় এ পুলটি জরুরী ভিত্তিতে পুনঃনির্মাণ করা একান্ত আবশ্যক। এলাকাবাসী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত