প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

তারেককে ফেরাতে ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে কথা হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি চাইলে আইনি প্রক্রিয়ায় এগোতে হবে কিংবা রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। পাশাপাশি তারেক জিয়াকে যেকোন মূল্যে দেশে ফিরিয়ে এনে আইনের আওতায় আনা হবে। ইতোমধ্যে এ ব্যাপারে ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। শনিবার লন্ডনে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ ও প্রবাসীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্যার টমাস উইলিয়াম বঙ্গবন্ধু হত্যার তদন্ত করার জন্য বাংলাদেশে আসতে চেয়েছিলেন কিন্তু জিয়াউর রহমান তাকে বাংলাদেশে আসতে দেননি। বাবা-মা, ভাই-বোন সবাইকে হারানোর বেদনা নিয়েই আমাকে দেশে ফিরতে হয়েছিলো। তবে দেশের মানুষের ভালোবাসা পেয়েছি, তাদের অনুপ্রেরণা পেয়েছি। আর এটাই আমাকে শক্তি যুগিয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা একুশ বছর পরে সরকার গঠন করার সুযোগ পাই। তখন আমি কি পেয়েছি। মাত্র ১৪’ শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ। চল্লিশ লক্ষ মেট্টিক টন খাদ্য ঘাটতি। গ্রামে গ্রামে ছিলো খাদ্যের জন্য হাহাকার। যেখানেই জনসভা করতে গিয়েছি মানুষ ছিন্নবস্ত্র পরা। হাতে মাটির শানকি। আমাকে দেখেই বলতো মা পেটে খাবার নেই, খাবার দাও। সেই সময় বিদেশ থেকে পুরানো কাপড় নিয়ে পরতে দেওয়া হত। এমন একটা পরিবেশ ছিলো তখন বাংলাদেশের। আমার প্রতিজ্ঞা ছিলো আমার বাবা এই দেশ স্বাধীন করেছেন। এই স্বাধীনতার সুফল জনগণের কাছে পৌঁছে দিবো। একটি মানুষও ক্ষুধার জ্বালায় ভুগবে না। একটি মানুষও গৃহহারা থাকবে না। একটি মানুষও অশিক্ষিত থাকবে না। দেশের প্রতিটি মানুষ শিক্ষা পাবে, চিকিৎসা পাবে এবং সুন্দর জীবন পাবে। তাই যখনই সরকার গঠন করেছি তখনই চেষ্টা করেছি মানুষের পাশে দাঁড়াতে। আমার প্রশ্ন? একুশ বছর পযর্ন্ত যারা ক্ষমতায় ছিলো তারা দেশকে কি দিয়েছে?

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ যেভাবে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছে পৃথিবীর আর কোন দেশ এমন দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পারেনি। প্রধানমন্ত্রী প্রশ্ন রেখে বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের মানবাধিকার লঙ্ঘন নিয়ে এত মায়া কান্না কেন?

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত