প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাশিয়া যেতে ভিসা লাগবে না বাংলাদেশিদের

রাশিয়া মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশের পাশে ছিল। এখন বাংলাদেশ-রাশিয়া সম্পর্কে নতুন দিগন্তের সূচনা হতে যাচ্ছে। দু’দেশের মানুষের যাওয়া আসার জন্য আর ভিসার দরকার হবে না। পাসপোর্ট থাকলেই চলবে। অর্থাৎ পাসপোর্ট থাকলেই রাশিয়ায় যেতে পারবেন বাংলাদেশিরা। তবে আপাতত কূটনৈতিক আর অফিসিয়াল পাসপোর্টধারীদের মধ্যে সুযোগটা সীমাবদ্ধ থাকবে। পরবর্তীতে সর্বজনীন হওয়ারও সুযোগ রয়েছে। জাতিসংঘের সাধারণ সভায় যোগ দিতে গিয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী আর রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ গত ২২ সেপ্টেম্বর এই ভিসা চুক্তিতে সাক্ষর করেছেন বলে রবিবার খবর প্রকাশ করেছে ভারতের জনপ্রিয় বাংলা দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ”রাশিয়া দু’হাত বাড়িয়ে বাংলাদেশিদের বরণ করতে প্রস্তুত। দু’দেশের মানুষের যাওয়া আসায় আর ভিসার দরকার নেই। পাসপোর্ট থাকলেই হল। যোগাযোগে তার চেয়ে উদার ব্যবস্থা আর কী হতে পারে। আপাতত সুযোগটা সীমাবদ্ধ থাকবে কূটনৈতিক আর অফিসিয়াল পাসপোর্টধারীদের মধ্যে।

বাংলাদেশের প্রশংসা করে পত্রিকাটি বলছে, ”বিশ্বের বৃহত্তম দেশ হয়েও জনসংখ্যায় বাংলাদেশের চেয়ে পিছিয়ে রাশিয়া। সে দেশের মাটিতে মানুষ মাত্র সাড়ে ১৪ কোটি, যেখানে বাংলাদেশে ২০ কোটি। সবার ওপরে মানুষ। অন্য সম্পদ তার কাছে কিছু না। সেই জনশক্তির জোরে এগোচ্ছে বাংলাদেশ। টেক্কা দিচ্ছে উন্নত দেশকেও। আর পাঁচ বছরে মধ্যম আয়ের দেশ হবে। পরের ধাপে উন্নত দেশের সারিতে। বাংলাদেশের অগ্রগতি রাশিয়ার নজরে। তারা বরাবরই বাংলাদেশের শুভাকাঙ্খী।”

বাংলাদেশ-রাশিয়া সম্পর্ক প্রসঙ্গে বলা হয়েছে, ”রাশিয়া মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশের পাশে ছিল। রাশিয়া তখন দ্য ইউনিয়ন অব সোভিয়েত সোস্যালিস্ট রিপাবলিক। রাষ্ট্রনেতা লিওনিড ব্রেজনেভ। সেই সময় সোভিয়েত ইউনিয়নের সুপ্রিম সোভিয়েতের প্রেসিডিয়ামে চেয়ারম্যান ছিলেন নিকোলাই পদগরনি। বঙ্গবন্ধু মুজিবুর রহমানের সঙ্গে ছিল তাঁর হার্দিক সম্পর্ক।  বন্ধুত্বের পরীক্ষা তো বিপদের দিনেই। সেই মৈত্রী আজ সুদে আসলে বেড়েছে অনেকটাই।”

বাংলাদেশে রাশিয়ার সব থেকে বড় অবদান পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ। কেন্দ্রটি হলে বিদ্যুতের সমস্যা আর থাকবে না।”

দিনে দিনে রাশিয়া অনেক বদলেছে। ১৯৯৭০ সালের জুলাইতে রুশ সংসদ ইসলাম, খ্রিস্টান, বৌদ্ধ, ইহুদি ধর্মকে স্বীকৃতি দিয়েছে। বিরোবিজান এলাকা ইহুদিদের স্বশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষিত। রুশ প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভের বাংলাদেশ সফর শুরু আগামী বছরের গোড়াতেই। দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের নতুন দিগন্ত খোলার ইঙ্গিত। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার চুক্তি হবে একাধিক বিষয়ে। সব দিক খতিয়ে দেখতে ঢাকায় প্রতিনিধিদল পাঠাচ্ছে রাশিয়া। সম্পর্কের নতুন মলাটটা তারাই তৈরি করবেন বলে মনে করছে ভারতের জনপ্রিয় বাংলা দৈনিকটি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত