প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পাঠক মতামত
‘চোরের মায়ের বড় গলা’

অধ্যক্ষকে পেটানোর পর এবার চট্টগ্রামের এক কোচিং ব্যবসায়ীকে পিটিয়েছেন চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি। তার এই ঘটনার পর মিডিয়ার মাধ্যমে জনগণের মাঝে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়। এই নিয়ে গতকাল ফেসবুকে একটা স্ট্যাটাস দিয়েছেন রনি। আমাদেরসময়.কম এ তার লেখা প্রকাশ করা হয়। অনেক পাঠক তার এই লেখার মতামতও জানিয়েছেন।

তাদের মধ্য থেকে কিছু মতাতম তুলে ধরা হলো:- আব্দুল মোতালেব লিখেছেন, চাঁদাবাজির সাথে মিথ্যাবাদী তার স্ট্যাটাস এর কোন মিল খুঁজে পেলাম না । রনির গায়ে চার হাজার টাকার জামা সে নাকি বাবা-মা কে ঈদে কাপড় দিতে পারেনি । তার বাবা-মা কে চাঁদাবাজি আর মিথ্যাবাদীর কাতারে মিশিয়ে দিল।

জুলফিকার আলী এর মতো, নিচে বিএনপি- জামাতিদের অশ্রাব্য গালিগালাজ দেখেই বুঝা যাচ্ছে, রনি সঠিক পথেই ছিল। আজ না হউক কাল, রনি ঠিকই ফিরে আসবে। নেত্রী শেখ হাসিনা মানুষ চিনতে ভুল করেন না!

সখিন আলম সজিব বলছেন, প্রয়াত মহিউদ্দিন স্যার বেঁচে থাকলে হয়তো এমন বাজে দিন আসত না। ভালোবাসি,ভাই। ভালো থাকুন।

নোরমান জয় বারিও লিখেছেন, চোরের মায়ের বড় গলা …..

সাইফুল ইসলমা এর মতে, ফেসবুক আছে তাই যা খুশি তাই লিখতে হবে এটা কে বলেছে? নেতার আচার আচরন দেখে কি বুজতে বাকি আছে কি সত্য আর কি মিথ্যা? এই সময়ের দুর্দান্ত ক্ষমতাবান তাও ক্ষমতাশীন রাজনৈতিক দলের প্রকাশ্যে ত্রাস সৃষ্টিকারী নেতা, তার টাকা মেরে খাবে সে হিম্মত এখনকার সাধারন মানুষের কি অাছে? এসব ভণ্ডামি করার সাহস ও নির্লজ্জ নেতারাই হয়, অন্য কারো নয়।

তারেক আবু লিখেছেন, নিম্ন-মধ‍্যবিত্ত পরিবারের সন্তানরা মাফিয়াদের প্রধান নিশানা। এরা লোভ সংবরণ করতে পারে না, ফলে অতি সহজেই মাফিয়াদের কুক্ষিগত হয়ে যায়।

মিলন হোসাইন মনে করেন, ফুলের মালা দিয়া তোমাকে বরন করা হবে, যেখানে গ্রামের একজন কর্মীর কথায় পুলিশ আসে, সেখানে আপনি বিভাগীয় নেতা, আপনার নামে থানায় মামলা হবে আমাদের কে বোঝাচ্ছেন।

মো. সাইফুল আলম বলছেন, যতই তৈল মালিশ করেন কোন লাভ হবে না।যে একবার পড়ে তার মেরুদণ্ড ভেঙে যায়। এটাই পলিটিক্স।

গতকাল রনির স্ট্যাটাস- রনি হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে কেউ রাজনীতি চর্চা করোনা।সর্বোচ্চ ‘রনি’ চরিত্রটি যে কোন গল্প,কবিতা অথবা উপন্যাসে ঠাঁই দিতে পারো।কারন বাস্তবতা অনেক কঠিন,অনেক বেশী দূর্গম।’ রনি’দের স্বপ্ন পূরন হবেনা এ সমাজে।

যে কলেজগুলোতে প্রগতির পতাকা উত্তোলনের পর একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় হবে স্বপ্ন দেখেছিলাম সে কলেজগুলোর জন্য পাবলিক দূর্ভোগ চরম আকার ধারন করেছে।দায়ী কে?রনি নাকি রনি বিরোধীরা?শিক্ষা আন্দোলনের পতাকা উড়িয়ে রনি’রা পেয়েছি চাঁদাবাজির খেতাব।অথচ শিক্ষা বানিজ্যে নিয়োজিতরা দাঁত খেলিয়ে হাসছে এই নগররে লুটভবনগুলোতে।মাঠ রক্ষার আন্দোলনে গিয়ে রনি’রা হয়েছে পুলিশের গুলিতে বুলেটবিদ্ধ,হয়েছে বাঁশ রড চুরি মামলার আসামী।আর মাঠ খেকোর নাম হয়েছে বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক ডট ডট ডট গোস্বামী চন্দ্রবিন্দু।মানবতার উদাহরন তৈরী করতে গিয়ে রনি’রা হয়েছে প্রতারকের হাতে পরাজিত,এতেও সার্বিক সহযোগিতায় একই মোস্তাক চক্রবর্তীরা।

রনি’দের স্বপ্নগুলো কাজী নজরুল অথবা রবীন্দ্রনাথের হাতেই স্বার্থকতা পেয়েছে বারবার।এদেশের কোন দলের কোন রাজনৈতিক নেতা রনি’দের স্বপ্ন পূরনে এগিয়ে আসেনি।মানবকন্যা শেখ হাসিনা দেশের ভাগ্য উন্নয়নে একক নৈপুন্যে কাজ করলেও নিজ দল ও অন্য সব দলের নেতারা রনি’দের দমন পীড়নে সবচেয়ে বেশী ভূমিকা রাখছে।

তাই পরিশেষে বলছি রনি হওয়ার স্বপ্ন দেখে নির্ঘূম রাত্রীযাপন সব দিক থেকেই ক্ষতিকর।এই যে দেখছো, জ্যান্ত নূরুল আজিম রনি আমি, দিনশেষে মিথ্যা অপবাদে ৫ টি ফৌজদারী মামলা, ২ বছরের সশ্রম কারাদন্ড আর পকেটে ৭২ টাকা নিয়ে অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে পা বাড়িয়েছি।

আমি রনি জেনে শুনে বুঝেই আত্মঘাতি হতে এ পথে এসেছি।জলজ্যান্ত আমি নূরুল আজিম রনির স্বপ্ন বাস্তবায়ন না হলেও এসবের বিরোধিতা কারীদের মুখোশ উন্মোচনের জন্য আমার জন্ম হয়েছে।

এ লড়াই চলুক,চলবে….

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত