প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কমলগঞ্জে কৃষকের মধ্যে চাপা কান্না

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের অনেক কৃষক বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার চেষ্টায় কমলগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় আগে-ভাগেই ইরি-বোরো চাষাবাদে নেমে পড়েন । মৌসুমের প্রথম দিকে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ভালো ফলনের স্বপ্ন দেখেন চাষীরা। হঠাৎ কৃষককের সেই স্বপ্ন ভাঙ্গতে শুরু করে।

তাদের ক্ষেতে এক ধরনের পোকার আক্রমণ ও ব্লাস্টসহ নানা রোগ দেখা দিয়েছে। ফলে আবহাওয়ার বৈরী আচারণে জেলায় ইরি-বেরো ক্ষেতে পোকাসহ নানা রোগের আক্রমণে চাষের লক্ষ্যমাত্রা ব্যাহত হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। এখন তাদের চোখে কান্না,ফসল হারানোর আশঙ্কায় তারা দিন কাটাচ্ছেন।

কমলগঞ্জের পতনঊষার ইউনিয়নের লক্ষীপুর গ্রামের বোরো চাষাবাদকারী কৃষক জয়নাল মিয়া, রফিক মিয়া, পরিমল দেবনাথ, সুজিত মালাকারসহ একাধিক কৃষক জানান, বোরো ধান তোলার সময় এসে গেছে, কিন্তু ব্রি-২৮ ধানের ছড়ায় চুচা (ব্লাস্ট) এবং একধরনের লালটি দেখা দিয়েছে। ফলে কৃষকরা হতাশায় ভোগছেন। তাদের কষ্টের ফসলে পোকা ধরেছে।

এ ব্যাপারে কমলগঞ্জ উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা প্রদ্যুত কুমার পাল জানান, ব্রি-ধান ২৮ এর উপর সারাদেশে (ব্লাস্ট) বীজ বাহিত রোগ ছড়িয়ে পড়েছে। বৈরী আবহাওয়ার কারণেই ব্লাস্ট রোগ দেখা দিতে পারে। কমলগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শামছুদ্দিন আহমদ জানান, এটি মূলত ব্রি-২৮ ধানের ক্লোন ইনজুরি রোগ। এটির কোন ঔষধ নেই। প্রাকৃতিক কারণে এটি হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত