প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

উপমন্ত্রী জয়ের উপর হামলা, কি ভাবছেন প্রবাসীরা?

যুক্তরাজ্যে সফররত বাংলাদেশের ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়ের উপর বিএনপি নেতা কর্মীদের হামলার ঘটনায় প্রবাসীদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

আমাদের সময় ডটকম’র পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে একাধিক প্রবাসীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। তারা বলেন, এ ধরণের ঘটনায় আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে। শুধুমাত্র রাজনৈতিক বিরোধিতার জের ধরে দেশের বাইরে প্রবাসীদের হাতে নিজ দেশের মন্ত্রীকে এভাবে লাঞ্চিত করা অনুচিত। এটা বাংলাদেশি নোংরা রাজনীতির পরিচয় বহন করেছে। বিষয়টি ঠিক হয়নি।

টিভি উপস্থাপক ও মানবাধিকার কর্মী আতাউল্লাহ ফারুক বলেন, ‘উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়ের উপর বিএনপির হামলা যেমন নিন্দনীয়, তেমনি মন্ত্রী সাহেবের বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচিতে বাধা দেওয়াও উচিত হয়নি। সবার মনে রাখতে হবে গণতন্ত্রের মা বলে খ্যাত যুক্তরাজ্যে সকলের অধিকার সমান এবং সবাই তার অধিকার চর্চা করার অধিকার রাখে। আর এটাই গণতন্ত্রের সৌন্দর্য।’

ওয়েষ্ট লন্ডনের একটি বাংলাদেশী টেকওয়ের শেফ আবু তাহের আজিজ। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশি নোংরা রাজনীতির ধারাবাহিকতা বেশ কয়েকবছর থেকে লন্ডনে দেশী রাজনীতিতে চলে আসছে। আরিফ খান জয়ের উপর হামলা এই ধারাবাহিকতারই অংশ। এই ধরনের ঘটনা খুবই নিন্দনীয় যা বাংলাদেশি হিসেবে বিদেশীদের কাছে আমাদের লজ্জায় ফেলে দেয়।’

লন্ডনে কর্মরত বাংলাদেশী বিউটিশিয়ান ও স্যোশালমিডিয়া এক্টিভিস্ট রত্না খান মনে করেন, ‘বিদেশের মাঠিতে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার অধিকার কারো নেই। আন্দোলন করার অধিকার সবার আছে এবং আন্দোলনের ভাষাও আছে। তাই বলে দেশের বাইরে নিজ দেশের মন্ত্রীর গায়ে হাত তোলা অসভ্যতার শামিল। বিশেষ করে যুক্তরাজ্যের মত একটা সভ্য রাষ্ট্রে এটা আরো বেশি দৃষ্টিকটু।’

সামাজিক সংগঠন ফ্রেন্ডস হেল্পিং সোসাইটির সভাপতি ও ব্যবসায়ী শাহ আলম বলেন, ‘বিদেশের মাটিতে এ ধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনা বাংলাদেশি হিসেবে আমাদের জন্য লজ্জার। রাজনৈতিক বিরোধ বা যা-ই থাকুক না কেন বিদেশে তাঁরা বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করেন। প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধেও যেসব কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে সেগুলোও দৃষ্টিকটু। রাজনীতিবিদরা যদি সত্যিকার অর্থে দেশকে ভালবেসে থাকেন, তাহলে এই নোংরা রাজনীতি থেকে তাদের বেরিয়ে আসা উচিত।’

প্রসঙ্গত, গত বুধবার লন্ডনে বাংলাদেশ সরকারের ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়ের উপর যুক্তরাজ্য বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচি থেকে হামলা করা হয়। জয় কমনওয়েলথ সম্মেলনে যোগ দেওয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফর সঙ্গী হিসেবে বর্তমানে লন্ডনে অবস্থান করছেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত