প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নারায়ণগঞ্জে মায়ের অনৈতিক কর্মকাণ্ডের বলি শিশু হৃদয়, আটক এক

মনজুর আহমেদ অনিক,নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জে মায়ের অনৈতিক কর্মকাণ্ড দেখে ফেলায় পরকীয়া প্রেমিককে সঙ্গে নিয়ে নিজ শিশু ছেলে হৃদয়কে (৯) পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে মা শেফালী আক্তারের বিরুদ্ধে। এ সময় তার অপর শিশু সন্তান জিহাদ (৫) ও ঝলসে গেছে। আহত জিহাদকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার ভোরে আড়াইহাজার উপজেলার উচিৎপুরা ইউনিয়নের বাড়ৈইপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশ মা শেফালী বেগমকে আটক করেছে। শেফালী ওই এলাকার লিবিয়া প্রবাসী আনোয়ার হোসেনের স্ত্রী। নিহত শিশু হৃদয় বাড়ৈইপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণির শিক্ষার্থী।পুলিশ নিহত হৃদয়ের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ মর্গে পাঠিয়েছে। আটক শেফালীর পরকীয়া প্রেমিক মোমেন তার স্বামী আনোয়ার হোসেনের সৎমায়ের আগের ঘরের ছেলে।

পুলিশ জানায়, উপজেলার উচিৎপুরা ইউনিয়নের বাড়ৈইপাড়া গ্রামের শেফালী বেগমের সঙ্গে প্রতিবেশী মোমেনের দীর্ঘদিন ধরে পরকীয়া চলছিল। বিষয়টি নিয়ে পরিবারের লোকজনের সঙ্গে তার মনোমালিন্য হয়। এর মধ্যে নিহত হৃদয় মা’র পরকীয়া প্রেমিকের সাথে অনৈতিক কর্মকাণ্ড দেখে ফেলে। এতে নিজ সন্তানদের হত্যার পরিকল্পনা করেন শেফালী তার প্রেমিক মোমেন। শুক্রবার গভীর রাতে শেফালী প্রেমিক মোমেনকে নিয়ে ঘুমন্ত দুই সন্তান হৃদয় (৯) ও জিহাদ (৫) কাঁথায় পেঁচিয়ে ম্যাচের কাঠি দিয়ে আগুন দেয়। মুহূর্তে মধ্যে ঝলছে যায় নিষ্পাপ দুই সন্তানের দেহ। তাদের আত্তচিৎকারে আশপাশের লোকজন বেড়িয়ে এসে তাদের উদ্ধার করে। এরেই মধ্যে অগ্নিদগ্ধ হৃদয় মধ্যেই মারা যায়। পরে জিহাদকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে রেফার্ড করেন। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

আড়াইহাজার থানার ওসি এম এ হক জানান, মোমেন ও শেফালী এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত বলে প্রাথমিকভাবে প্রমাণ পাওয়া গেছে। ঘটনায় শেফালীকে আটক করা হয়েছে। তবে শেফালী ঘটনার সঙ্গে তার জড়িত থাকার বিষয় অস্বীকার করে পরকীয়া প্রেমিক মোমেনকে দায়ী করেছে। ওসি আরো জানান, শেফালীর পরকীয়া প্রেমিক মোমেন তার স্বামী আনোয়ার হোসেনের সৎমায়ের আগের ঘরের ছেলে। মোমেনকে আটকের চেষ্টা চলছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত