প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

২৮ বছর পর পিস্তলে রৌপ্য পদক 

আবু হোসাইন শুভ:  কমনওয়েলথ গেমসে ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে আব্দুল্লাহ হেল বাকীর পর রৌপ্য জিতলেন শাকিল আহমেদ। ৫০ মিটার পিস্তলে বাংলাদেশের তালিকায় দ্বিতীয় পদক যোগ করলেন ২০১৬ সালে এসএ গেমসে স্বর্ণপদক জয়ী এই শুট্যার। ৫০ মিটার পিস্তলে ইভেন্টে ২২০ দশমিক পাঁচ স্কোর করে রৌপ্য জিতেন তিনি।

 

এই ইভেন্টে কমনওয়েলথ গেমস রেকর্ড, ২২৭ দশমিক ২ স্কোর করে স্বর্ণ জিতেছেন অস্ট্রেলিয়ার ড্যানিয়েল রেপাকলি। ১০ মিটার এয়ার পিস্তলের ফাইনালেও খেলেছিলেন শাকিল আহমেদ। কিন্তু সেই ইভেন্টে প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেননি এই সেনাবাহিনীর শুট্যার।

১০ মিটার এয়ার রাইফেলে বাকীর প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছিল অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের দুই শ্যুটারের সঙ্গে। এই ইভেন্টেও শাকিলের লড়াই ছিল একই দেশের দুই শ্যুটার। যদিও শাকিলের শুরুটা ভালো হয়নি। প্রথম ৫ শট শেষে তিনি ছিলেন ৫ম স্থানে। অবশ্য বন্দুক গুলির নিশানার খেলায় পরের ৫ শটে তিনি কিছুটা এগিয়ে যান। ১২ শটের পর শাকিল উঠে আসেন তৃতীয় স্থানে। এরপর ধারাবাহিকতা ধরে রাখেন। ধীরে ধীরে কমতে থাকে প্রতিদ্বন্দ্বিতার সংখ্যা। ভারতের ওম মিথারভাল ২০ শট পর্যন্ত ছিলেন দ্বিতীয় স্থানে। কিন্তু পরের দুই শটে এগিয়ে গিয়ে রেপাকলির সঙ্গে স্বর্ণের লড়াইয়ের অবতীর্ণ হন শাকিল।

অবশ্য তখনই স্বর্ণ অনেকটা নিশ্চিত হয়ে যায় রেপাকলির। ব্যবধানটা ছিল সাড়ে ৬। তাই শেষ দুই শটে ভালো স্কোর করেও শেষ পর্যন্ত রৌপ্য নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয় শাকিলকে। কমনওয়েলথ গেমসে বাংলাদেশ প্রথম পদক জিতেছিল ১৯৯০ সালে। সেবার একটি করে স্বর্ণ ও ব্রোঞ্জ এসেছিল আব্দুস সাত্তার নিনি ও আতিকুর রহমানের দলগত পিস্তল ইভেন্টে। এরপর কমনওয়েলথে আরো পদক এসেছে, যার সবই ছিল রাইফেল ইভেন্টে। শাকিলের হাত ধরে দীর্ঘ ২৮ বছর পর পিস্তল ইভেন্টে পদক জিতলো বাংলাদেশ। দীর্ঘ সময়পর পিস্তলে পদকের খড়া মেটাতে পারায় উচ্ছ্বসিত শাকিল জানান, পদক জয়ের প্রস্তুতি আগে থেকেই ছিল।দেশে থাকতে সেভাবে অনুশীলনও হয়েছে।

পদক জয়ের অনুভূতি জানাতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘অবশ্যই ভালো লাগছে। বাংলাদেশ থেকে ভালো প্রস্তুতি নিয়ে এখানে এসেছিলাম। আমার লক্ষ্য ছিল পদক না হোক, আমার যে স্কোরটা ছিল সেটা যেন হয়। আমাদের টিমের প্রত্যেকেই তাদের সেরা স্কোর করেছে। কারণ এবার আমাদের প্রস্তুতি খুব ভালো ছিল।’ ১০ মিটার পদক জিততে না পারার কারণ ব্যাখ্যা করে শাকিল বলেন, ‘আমার ১০ মিটার এয়ার পিস্তলেও ভালো পারফরম্যান্স ছিল। কিন্তু ফাইনালের কথা আগে ভাগে কিছুই বলা যায় না। তার পরও আমি চেষ্টা করেছিলাম, হয়নি। কিন্তু ৫০ মিটার পিস্তল ছিল আমার মূল ইভেন্ট। আশা করেছিলাম এখানে ভালো কিছু করবো। এখানে যেটা চেয়েছি সেটাই করতে পেরেছি বাছাইপর্বে, ফাইনালেও। অনুশীলনে সবসময় যেটা মারি সেটাই মেরেছি।’

১৯৯০ এরপর আবার পিস্তলে পদক। নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ডে আতিকুর রহমান ও আব্দুস সাত্তার নিনি পিস্তল দলগত ইভেন্টে সেবার স্বর্ণপদক জিতেছিলেন। এটাই ছিল দেশের হয়ে গেমসে প্রথম পদক। শাকিল অবশ্য ২০১৬ সালে এসএ গেমসে স্বর্ণপদক জেতার পর পাখির চোখ করেছিলেন এই ইভেন্ট। শাকিল তেমনই জানালেন, ‘আমি ২০১৬ সালে এসএ গেমসে প্রথম স্বর্ণপদক জিতি। তখন থেকেই লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিলাম কমনওয়েলথ গেমসকে। সেভাবেই প্রস্তুতি শুরু করি। ফেডারেশন থেকে সবধরনের সাহায্য-সহযোগিতা পেয়েছি; যা চেয়েছি তাই দিয়েছে। বাংলাদেশ আর্মিও আমাকে সহায়তা দিয়েছে। তবে বিশেষভাবে বলবো অপু ভাইয়ের কথা। সবসময় তিনি আমাদের পাশে থেকেছেন। প্রতিযোগিতার সময় আমার অন্য সতীর্থরাও আমাকে সমর্থন দিয়েছে। তাদের কাছেও আমি কৃতজ্ঞ।’ সূত্র : মানবজমিন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত