প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আহত মোরশেদা স্বজনদের কাছে

ডেস্ক রিপোর্ট : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আহত ছাত্রী মোরশেদা খানমকে চিকিৎসা শেষে স্বজনদের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। কবি সুফিয়া কামাল হলের সিনিয়র আবাসিক শিক্ষক শামীম বানু বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

শামীম বানু বলেন, ‘ঘটনা ঘটার সঙ্গে সঙ্গে আমরা সেখানে যাই। আহত শিক্ষার্থীকে সরকারি কর্মচারী হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। এরপর একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে তাকে স্বজনের সঙ্গে বাসায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। একজনই আহত হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘ছাত্রীর সামান্য পা কেটে গেছে। তার আঘাত গুরুতর না। তবে এটা বড় অপরাধ। আমরা সেভাবেই ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি।’

রগকাটা হয়েছে কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘না না, এমন কিছু না।’

তিনি বলেন, ‘ঘটনার পর অন্যান্য শিক্ষার্থীরা উত্তেজিত হয়ে সবাই হলের নিচে নেমে অবস্থান নেয়। তাদের বুঝিয়ে পরবর্তীতে রুমে নেওয়া হয়েছে।’

শামীম বানু বলেন, ‘অভিযুক্ত ছাত্রীকে প্রক্টর বডির হেফাজতে রাখা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিষয়টি দেখছে।”

মোরশেদাকে দেওয়া চিকিৎসা সম্পর্কে সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের ইমারজেন্সির মেডিক্যাল অফিসার ডা.গালিব বলেন, ‘রাত দেড়টার দিকে মোরশেদাকে নিয়ে আসেন চার-পাঁচ জন। তার সঙ্গে যারা ছিল তারা পরিচয় দিতে চাচ্ছিল না। মোরশেদার পায়ের পেছনে ও সামনে কেটেছে। পেছনের কাটা একটু গভীর। ড্রেসিং করেছি, সেলাই লেগেছে।’

মোরশেদার আঘাত কীভাবে লেগেছে জানতে চাইলে ডা. গালিব বলেন, ‘আসলে আমার কাছে যখন এসেছে, তখন আমি চিকিৎসাকে প্রাধান্য দিয়েছি। এটা ইচ্ছাকৃত না কেউ আঘাত করেছে, তা এই মুহূর্তে বলা সম্ভব নয়। আমরা প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে পাঠিয়ে দিয়েছি।’

সুফিয়া কামলা হলের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষার্থী বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, রাতে মোরশেদাসহ একাধিক শিক্ষার্থীকে হল শাখা ছাত্রলীগের সভানেত্রী ইফাত জাহান এশা ডেকে ৩০৮ রুমে নেন। পাশের ৩০৭ রুমেই এশা থাকেন। তাদের ডেকে কোটা আন্দোলনে অংশ নেওয়ার কারণ জানতে চান। তখন কথা কাটাকাটটি হয়। এরপর মোরশেদা খানমকে আঘাত করেন। এতে তার পা কেটে যায়। এই খবর পাওয়ার পর অন্য ছাত্রীরা সেখানে যায়। এরপর সবাই বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। তারা বের হয়ে হলের বাগানে অবস্থান নেয়।

আহত মোরশেদাকে তার স্বজনেরা রাজধানীর মগবাজারের বাসায় নিয়ে গেছেন বলে জানা গেছে। সূত্র : বাংলা ট্রিবিউন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত