প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জামিনের ক্ষেত্রে সুবিচার পেলেন না খালেদা জিয়া: জয়নুল আবেদীন

মো. কামাল হোসেন: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার হাইকোর্টের দেয়া জামিন ৮ মে পর্যন্ত স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ। এর আগে অবশ্য ২২ মে পর্যন্ত পর্যন্ত স্থগিত করেছিলেনন আপিল বিভাগ। পরে খালেদা জিয়ার আইনজীবীর আবেদনের প্রেক্ষিতে পরিবর্তন করা হয়।

সোমবার (১৯ মার্চ) সকালে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে চার বিচারপতির আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আপিল বেঞ্চের অন্য সদস্যরা হলেন- বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার। আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ব্যারিস্টার রফিকুল হক, দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশিদ আলম।

আদেশের প্রতিক্রিয়ায় শুনানী শেষে আদালত থেকে বেরিয়ে জয়নুল আবেদীন সাংবাদিকদের বলেন, আমরা বুঝতে পারলাম না যে আদালত কি দেখে আদেশ দিলেন। দেশের সর্বোচ্চ আদালতে কি আদেশ হলো আমরা বুঝতে পারলাম না। এটা নজির বিহীন আদেশ। অতীতে কখনো দেশের সর্বোচ্চ আদালত এমন আদেশ দেননি।

জয়নুল বলেন, আজ জাতির উদ্দেশে বলতে চাই, দেশের সর্বোচ্চ আদালত যে আদেশ দিয়েছেন তা অনভিপ্রেত। অতীতে কখনো এমন আদেশ হয়নি আমরা মর্মাহত।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেন, আদালত জামিন স্থগিতের কোন সুনির্দিষ্ট কারণ জানাননি। তিনি আরও বলেন, একটা অনভিপ্রেত আদেশ হল সর্বোচ্চ আদালতে। জামিনের ক্ষেত্রে সুবিচার পেলেন না খালেদা জিয়া।

এর আগে আদলতে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিন স্থগিতের পর তার অন্যতম আইনজীবী অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন আদালতকে বলেন, মাননীয় আদালত আমরা বুঝতে পারলাম না কি আদেশ দিলেন। দেশের সর্বোচ্চ আদালতে আমরা জানতে চাই কি আদেশ দিয়েছেন। আমরা আদেশ বুঝতে পারিনি।

জবাবে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেন, আমরা সবকিছু দেখে আদেশ দিয়েছি। তখন জয়নুল বলেন, আমরা মেরিটে কোন শুনানি করতে পারিনি।

পরে প্রধান বিচারপতি বলেন আপনারা মামলার সার-সংক্ষেপ জমা দেন।

তখন জয়নুল সময় কমিয়ে দেয়ার প্রর্থনা করলে আদালত বলেন দুই সপ্তাহের মধ্যে মামলার সার সংক্ষেপ জমা দেবেন। এরপর এডভোকেট জয়নুল আবেদীন বলেন, এটা দেশের সর্বোচ্চ আদালত আমরা তার নিদের্শ মানতে বাধ্য।

এর পর আদালত আগামী ৮ মে পরবর্তী তারিখ ধার্য করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত