প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাবেয়া-রোকেয়ার ব্রেনে নতুন রক্তনালী সক্রিয় করার পদক্ষেপে সফলতা

রিকু আমির : জোড়া মাথার শিশু রাবেয়া-রোকেয়ার ব্রেনে নতুন রক্তনালী সক্রিয় করতে পদক্ষেপ সফলতার সাথে গ্রহণ করতে পেরেছেন চিকিৎসকরা। এ ধরণের কাজ বাংলাদেশে এই প্রথম।

বুধবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ১৯ মাস বয়সী শিশুদের মস্তিষ্কের একটি রক্তনালী সফলভাবে ব্লক করতে সক্ষম হন চিকিৎসকরা।

এ প্রসঙ্গে বার্ন ইউনিটের সহকারী অধ্যাপক তানভীর আহমেদ এ প্রতিবেদককে জানান, দুই ব্রেনের জন্য দুটি রক্তনালী থাকার কথা। কিন্তু আছে একটি। আরও রক্তনালী সক্রিয় করতে বর্তমানে সক্রিয় একটি রক্তনালী ব্লক করা হয়েছে। তাদেরকে পূর্ণ সুস্থ্য করতে অবশ্যই দুটো রক্তনালী লাগবে। দুই ব্রেনে দুটো রক্তনালী কাজ করবে।

শেখ হাসিনা ন্যাশনাল বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের উপদেষ্টা ডা. সামন্ত লাল সেন এ প্রতিবেদকের প্রশ্নে বলেন, এটা অপারেশন নয়, অপারেশনের প্রস্তুতি মাত্র। আমার জানা মতে- এ ধরণের কাজ দেশে ইতোপূর্বে হয়নি।

মঙ্গলবার এনজিওগ্রামের মাধ্যমে রাবেয়া-রোকেয়ার চিকিৎসার প্রথম ধাপ এবং বুধবারের কাজের মধ্যমে দ্বিতীয় ধাপ সফলভাবে সম্পন্ন করা হয়। কমপক্ষে তিন মাস পর তৃতীয় ধাপ অপারেশনের মাধ্যমে সম্পন্ন করবেন চিকিৎসকরা। নতুন রক্তনালী গজালে তৃতীয়ধাপে এই নালী একটি মস্তিষ্কের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করা হবে। আর এতেই বড় ধরণের সফলতার আলো দেখতে পারবেন চিকিৎসকরা।

বুধবারের দ্বিতীয়ধাপে অংশ নেন হাঙ্গেরি থেকে আসা দুজন নিউরো সার্জন। এছাড়া ঢামেকের নিউরোসার্জারি, প্লাস্টিক সার্জারির দক্ষ চিকিৎসকরা অংশ নেন।

অপারেশন দলের একজন জুনিয়র চিকিৎসক ও প্লাস্টিক সার্জন এ প্রতিবেদককে জানান, দ্বিতীয়ধাপ অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। কোনো কারণে যদি রক্তনালী ব্লক না করা যেত শিশু দুটি অপারেশনের টেবিলেই মৃত্যুবরণ করতে পারত। আগের অবস্থাতেও ফিরিয়ে নেয়া সম্ভব হতো না। তার চেয়ে বড় কথা- এই ধরণের অপারেশন বাংলাদেশে প্রথম।

গত বছরের ২০ নভেম্বর ঢামেক বার্ন ইউনিটে ভর্তির পর থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার খরচে রাবেয়া-রোকেয়ার চিকিৎসা হচ্ছে। তাদের বাবা-মা পাবনার চাটমোহর উপজেলার আটলংকা গ্রামের স্কুল শিক্ষক রফিকুল ইসলাম ও তাসলিমা খাতুন। রাফিয়া (৬) নামের আরেক কন্যাশিশু আছে এই দম্পত্তির।

পাবনা সদরের একটি হাসপাতালে সিজারের মাধ্যামে রাবেয়া ও রোকেয়ার জন্ম। তাদের বয়স যখন ৫দিন, তখন থেকেই ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে আনা হয়। অসংখ্যবার এখানে চিকিৎসা দেয়া হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত