প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বসতবাড়ি ভেঙে দিয়ে বিদ্যালয় নির্মাণের অভিযোগ

ইসমাঈল হুসাইন ইমু : রাজধানীর কামরাঙ্গিরচর সাইনবোর্ড এলাকায় ১৮টি পরিবারকে উচ্ছেদ করে শেখ জামাল উচ্চ বিদ্যালয়ের নামে বাড়ী-ঘর দখলের প্রতিবাদ ও বিচার দাবি করেছে ভুক্তভোগীরা।

বুধবার সকালে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়।

লিখিত বক্তব্যে নাজমা বেগম নামের এক ভুক্তভোগী জানান, ভেঙে দেয়া বাড়িঘরের মালিকদের কোন রকম ক্ষতিপূরণ না দিয়েই স্থানীয় প্রভাবশালীরা রাতের আঁধারে যাবতীয় আসবাবপত্র হাতিয়ে নিয়েছে। ভূমির মালিকরা তাদের সামান্য মাথা গোজার ঠাঁই কেড়ে নেয়ার পর উপ পুলিশ কমিশনার জোন ও কামরাঙ্গীরচর থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। কিন্তু রহস্যজনক কারণে পুলিশ ভূমির মালিকদের কোন সহযোগিতা করেনি বরং যারা রাতের আঁধারে কাঁচা-পাকা বাড়িঘর ভেঙেছে তাদেরই সহায়তা করছে। এ ঘটনার পর প্রায় ২৫/৩০টি বাড়ির মালিক তাদের পরিবারের সদস্যদের কামরাঙ্গীরচর রাস্তার পাশে আশ্রয় নিয়েছে। ৪০ একর জমির মধ্যে নির্মিত হচ্ছে শেখ জামাল উচ্চ বিদ্যালয়।

দীর্ঘ দুই যুগের বেশি সময় ধরে উক্ত সম্পত্তির উপর আমরা ২৫/৩০টি পরিবার সন্তান সন্ততি নিয়ে সেখানে বসবাস করে আসছি। তাছাড়া সোনালী ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংক ও গ্রামীন ব্যাংক এবং দলিল বন্দক রেখে ঋণ নিয়েছে। অথচ গত ১৩ অক্টোবর স্থানীয় মন্ত্রীর নাম ভাঙ্গিয়ে কতিপয় প্রভাবশালীরা নির্মিত এসব বাড়িঘর ভেঙে দিয়ে প্রাচীর দিয়ে দখল করে নিয়েছে।

নাজমা বেগম আরও বলেন, এই পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীসহ কমপক্ষে ২০জন মন্ত্রী এমপি ও পুলিশ কমিশনারসহ সবার কাছে লিখিত আবেদন করা হয়েছে। কিন্তু কোন কাজ হয়নি। বরং পুলিশ আমাদেরকে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করছে। এ অবস্থা থেকে রেহাই পেতে ১৮টি পরিবারের মাথা গোঁজার ঠাই করে দিতে প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তিনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত