প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আঁখি হত্যা রহস্যের জট খোলেনি, বন্ধু সাব্বির গ্রেফতার

সুশান্ত সাহা : রাজধানীর বিমানবন্দর রেলস্টেশনে ছাত্রী আঁখি আক্তারের হত্যা রহস্যের জট খোলেনি। তবে পুলিশ তার বন্ধু সাব্বিরকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে। এছাড়া পুলিশ আরো চার বন্ধুকে সন্দেহের তালিকায় রেখেছে।

শনিবার গভীর রাতে রাজধানীর বিমানবন্দর রেল স্টেশনে ট্রাভেল ব্যাগের ভেতর থেকে অজ্ঞাত হিসেবে আঁখির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরদিন বিকালে ঢামেক মর্গে গিয়ে স্বজনরা পরিচয় শনাক্ত করেন।

ঢাকা রেলওয়ে থানার ওসি ইয়াসিন ফারুক জানান, ওই ঘটনায় সন্দেহজনকভাবে আঁখির বন্ধু সাব্বিরকে আটক করা হয়েছে। ওই যুবক রাজউক উত্তরা মডেল কলেজের ছাত্র। ফেসবুকের মাধ্যমে আঁখির সঙ্গে তার পরিচয়। ফেসবুকের ম্যাসেঞ্জারে আঁখির সঙ্গে কথোপথন হয়েছিল। তবে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি এখনও খুনে সম্পৃতার কথা স্বীকার করেননি। তার কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে আরও কয়েকজনকে আটকের চেষ্টা চলছে। ওসি বলেন, ওই তরুণী কেনো খুন হলেন, কোথায় তাকে হত্যা করা হয়েছে তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এ ঘটনায় নিহত ছাত্রীর মামা বাদি হয়ে মামলা করেছেন। মামলায় তিনজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে। ওই মামলায় ছাত্রীর বন্ধু সাব্বিরকে গ্রেফতার দেখিয়ে তিন দিনের রিমান্ড আবেদন করে আগামীকাল (আজ) আদালতে পাঠানো হবে।

আঁখির বড় মামা নুরুল ইসলাম খান জানান, তারা পুলিশকে মৌখিকভাবে কয়েকজনের নাম বলেছেন। পুলিশকে কিছু তথ্যও দিয়েছেন। তাদের ধারনা, বন্ধুদের কেউ আঁখিকে খুন করেছে।

অপর একজন মামা রোকন খান বলেন, আঁখির বাবা-মা দুইজনেই মরিশাসে থাকেন। তাদের নির্দেশে গ্রামের বাড়ি মাদারীপুরের কালকিনিতে আাঁখির লাশ দাফন করা হয়েছে। মঙ্গলবার আঁখির বাবা আরিফ হোসেন বিদেশ থেকে ফিরবেন। তিনি আরো বলেন, আঁখির গ্রামের বাড়ি মাদারীপুর কালকিনি উপজেলার আন্ডাচরে। পল্লবীর ১২ নম্বর সেকশনের ই ব্লকের ৩৩ নম্বর রোডের ৩৮ নম্বর বাড়িতে ছোটবেলা থেকে আঁখি মামা-মামীর কাছে থাকতেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত