প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পুরুষ ভোটার নিমিষেই হয়ে যাচ্ছেন নারী!

ডেস্ক রিপোর্ট : হরমোনের পরিবর্তনের ফলে পুরুষ রূপান্তরিত হয়ে নারী কিংবা নারী রূপান্তরিত হয়ে পুরুষ হয়ে ওঠার ঘটনা হরহামেশাই শোনা যায়। কিন্তু হরমোন অপরিবর্তিত থেকেও লিঙ্গ পরিবর্তনের ঘটনা কেউ কি শুনেছেন? বিরল এই ঘটনাটিই এবার ঘটেছে খোদ বাংলাদেশে। নির্বাচন কমিশনের তথ্যভাণ্ডারে নতুন ভোটারদের অনেকেরই এবার লিঙ্গ পরিবর্তন হয়ে গেছে। পুরুষ ভোটার নিমিষেই হয়ে গেছেন নারী আর নারীরা পুরুষ। সম্প্রতি চূড়ান্ত করা ভোটার হালনাগাদ তালিকায় ডাটা এন্ট্রি অপারেটররা এভাবেই দায়সারাভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করেছেন। এতবড় ভুল ধরা পড়েছে চূড়ান্ত ভোটার তালিকার পর। বিষয়টি নিয়ে রীতিমতো বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছে কেএম নুরুল হুদা নেতৃত্বাধীন বর্তমান নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

এদিকে, ভোটার তথ্যভাণ্ডারও রয়েছে চরম ঝুঁকিতে। মুছে যাচ্ছে ভোটারদের তথ্য ও ডাটা। নতুন ভোটার সংযোজন-বিয়োজন করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। মাঝে মধ্যে বিপজ্জনক সংকেত দিচ্ছে সার্ভার। এসব ভয়াবহ ত্রুটি সংশোধন নিয়ে যখন ব্যস্ত, তখন ডাটা এন্ট্রি অপারেটর ও যাচাইকারী (প্রুফ রিডার) কর্তৃপক্ষের ভুলের কারণে নতুন করে বেকায়দায় পড়া কমিশন দ্রুত ত্রুটি সংশোধনের জন্য মাঠ কর্মকর্তাদের চিঠি দিয়েছে।

জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের (এনআইডি) সহকারী পরিচালক আরাফাত আরা (গবেষণা উন্নয়ন) স্বাক্ষরিত ওই চিঠি সংশ্লিষ্টদের কাছে পাঠানো হয়। এতে কিছু নিদের্শনা দেয়া হয়েছে। কিন্তু নারী পুরুষে এবং পুরুষ নারীতে রূপান্তরের ক্ষেত্রে কতগুলো জেলা-উপজেলায় এই সমস্যা দেখা দিয়েছে এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ মুখে কুলুপ এঁটেছে। তাদের ভাষ্যমতে, এ সংখ্যা খুবই সামান্য, যা মার্জনীয় পর্যায়ে।

এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের যুগ্ম সচিব এবং এনআইডির পরিচালক (অপারেশন) মো. আবদুল বাতেন বলেন, গত বছর ভোটার হালনাগাদ তালিকায় ভোটার নাগরিকদের তথ্য সংগ্রহের পর তথ্য নিবন্ধন করার সময় পুরুষ ও নারীদের তথ্য কিছুটা উল্টা-পাল্টা হয়েছে। ডাটা এন্ট্রি অপারেটর এবং প্রুফ রিডারদের অসতর্কতার কারণে এই অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা ঘটেছে, যা সংশোধনযোগ্য। তিনি বলেন, প্রথমে ধারণা করা হয়েছিল, এটি ব্যাপক (ম্যাভিস) আকারে হয়েছে। কিন্তু তা নয়, সীমিত কিছু এলাকায় এই বিভ্রান্তি খুঁজে পাওয়া গেছে। এগুলোকে এনআইডিতে সংশোধন না করে মাঠ অফিসকে সমাধানের জন্য নিদের্শনা দেয়া হয়েছে।

প্রাপ্ত তথ্য মতে, ভোটার তালিকায় ভুল ত্রুটি দূরীকরণ সংক্রান্ত নিদের্শনায় বলা হয়েছে, যেসব এলাকায় ডাটা এন্ট্রি অপারেটরের ভুল এন্ট্রির কারণে পুরুষকে নারী এবং নারীকে পুরুষ হিসেবে দেখানো হয়েছে, পাশাপাশি প্রুফ রিডার হালনাগাদ কার্যক্রম সঠিকভাবে মনিটরিং করেননি, যার পরিপ্রেক্ষিতে সংশ্লিষ্ট এলাকায় পুরুষের স্থলে নারী এবং নারীর স্থলে পুরুষ অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। এসব ভুল ৮টি উপায়ে সংশোধনের জন্য নির্দেশনা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।
নির্দেশনাতে ক্লাইন্ট কম্পিউটারের ‘বিআইও-এনরোল, সফটওয়্যারে অপারেটর হিসেবে লগ ইন করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে ড্রাফট ভোটার লিস্ট কারেকশন মেনুতে প্রবেশ করা, ভোটারের ব্যক্তিগত ১৭ নম্বরের তথ্য সংবলিত পিনটি সঠিকভাবে ঘরে এন্ট্রি করা, ভোটার নং ঘরে ১২ সংখ্যার ভোটার নম্বরটি টাইপ করা, সংরক্ষিত ঘরে পুরুষ-নারী সংশোধন করা ও সংরক্ষণ করুন বাটনে ক্লিক করে ডাটাটি সংরক্ষণ করা এবং সংশোধিত ডাটাগুলো উপজেলা সার্ভারের ‘আপলোড সফটওয়্যার’ দিয়ে সার্ভারে আপলোড অথবা সিডি করে এনআইডিতে পাঠাতে বলা হয়েছে। মানবকণ্ঠ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত