প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রূপগঞ্জের সর্বত্র আলোচনা
এই ওসির খুঁটির জোর কোথায়?

ডেস্ক রিপোর্ট : রূপগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইসমাইল হোসেনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর তিনি আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। তার বিরুদ্ধে গণমাধ্যমে বক্তব্য দেওয়ায় উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের গ্রেফতারের জন্য বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে পুলিশ। আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের পেন্ডিং মামলায় আসামি করারও পাঁয়তারা চালাচ্ছেন ওসি। এ ছাড়া ওসির প্রশ্রয়ে আরও জোরসে চলছে গ্রেফতারবাণিজ্য, মাদক ব্যবসা, শিল্পাঞ্চল ও পরিবহনে চাঁদাবাজি, জুট আর বালু ব্যবসা, জমি ব্যবসা, রূপগঞ্জে এখন সর্বত্রই আলোচনা হচ্ছে ওসির খুঁটির জোর কোথায়?

জানা যায়, ইসমাইল হোসেন একসময় ছিলেন নরসিংদী সরকারি কলেজের ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক। অভিযোগ উঠেছে, এখন তিনি স্থানীয় এমপি গাজী গোলাম দস্তগীরের খুবই অনুগত হয়ে ওসিগিরি করছেন এবং এমপির ইশারায় এমপির অপছন্দের আওয়ামী লীগারদের ওপর নিপীড়ন চালাচ্ছেন। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতা রফিকুল ইসলাম রফিক, উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ শাজাহান ভূইয়াসহ দলের প্রায় ১৫০০ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে হত্যাসহ নানা ধরনের প্রায় ১৫০ মামলা দিয়ে রূপগঞ্জ উপজেলাকে আওয়ামী লীগশূন্য করতে সচেষ্ট।

এই ওসির শেল্টারে রূপগঞ্জে চলছে গ্রেফতারবাণিজ্য, মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ, শিল্পাঞ্চল ও পরিবহন সেক্টরে চাঁদাবাজি, জুট আর বালু ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ, জমি ব্যবসা, সন্ত্রাসীদের মদদ দেওয়াসহ নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ড। পুলিশের নিষ্ক্রিয়তায় উপজেলায় বিভিন্ন এলাকায় বৃদ্ধি পায় জঙ্গি তৎপরতাসহ ডাকাতির ঘটনা। দেশের শীর্ষ ধনীর ওসির তালিকায়ও উঠেছে ওসি ইসমাইল হোসেনের নাম। নামে-বেনামে রূপগঞ্জ, নরসিংদী, ঢাকা ও টঙ্গীতে রয়েছে তার শতকোটি টাকার সম্পদ। গত কয়েকদিন ধরে ওসির এসব অপকর্মের সচিত্র প্রতিবেদন দেশের শীর্ষ কয়েকটি প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় প্রধান খবর হয়।

এরপর বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা, দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ওসির অপকর্ম আর অবৈধ সম্পদ খুঁজে বের করতে মাঠে নামে। এসবের কোনো পরোয়া নেই তার। জানা গেছে, রূপগঞ্জে এখন ওসির অধীনস্থদের প্রতিদিন থানাহাজতে এনে ১০০ ব্যক্তিকে আটকে রেখে উেকাচের বিনিময়ে ছেড়ে দেওয়ার টার্গেট দেওয়া হয়েছে। অনুসন্ধানে জানা যায়, ওসি বলে বেড়াচ্ছেন, ‘সারাজীবন লিখেও কেউ আমার কিছু করতে পারবে না।’

একটি সূত্র জানায়, ওসির স্বার্থে গঠন করা হয়েছে ‘ওসি রক্ষা ফান্ড’ সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, গডফাদার, পতিতার দালাল, ওয়েস্টেজ ব্যবসায়ী, অস্ত্র ব্যবসায়ী আর কিছু সমাজবিরোধী মিলে এই ফান্ড গঠন করেছেন। এ ফান্ডের ক্যাশিয়ার করা হয়েছে প্রাইম রিভারভিউ সিটির দালাল হোসেন মিয়াকে। এই ফান্ডে প্রাইম রিভারভিউ সিটির পক্ষ থেকে ১৫ লাখ টাকা জমা করা হয়েছে। এক কোটি টাকার টার্গেট নিয়ে গঠিত এই ফান্ডে টাকা জমা করার জন্য সংশ্লিষ্টদের ‘এমপি হাউস’ থেকে তাগাদা দেওয়া হচ্ছে। এই টাকায় তার বদলি শাস্তির হুকুম এলে ঠেক দেওয়া হবে বলে সূত্রটি জানায়।

এদিকে প্রায় প্রতিদিন উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সংগঠন ওসির অপসারণ ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে রাস্তা অবরোধ, মানববন্ধন, কালো ব্যাজ ধারণ, থানা ঘেরাওসহ নানা কর্মসূচি পালন করে চলেছে, তবু প্রতিকার পাওয়া যাচ্ছে না। তাই, ওসির হাতে হয়রানি হওয়া সাধারণ মানুষ ও গণমাধ্যমে ওসির বিরুদ্ধে বক্তব্য দেওয়া লোকজন ভয়ে রূপগঞ্জ ছেড়ে অন্যত্র বসবাস করছেন। বাংলাদেশ প্রতিদিন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত