প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চলতি বছরে দেশে রেকর্ড পরিমাণ চা উৎপাদন হবে

মতিনুজ্জামান মিটু: অপ্রত্যাশিত ঘটনা না ঘটলে চলতি বছরে দেশে রেকর্ড পরিমাণ চা উৎপাদন হবে। যা বিগত ১০ বছরের বিশেষ করে ২০১৬ সালের উৎপাদনকে ছাড়িয়ে যাবে। অতিবৃষ্টি ও ভূমিধ্বসে ২০১৭ সালে দেশে চায়ের উৎপাদন কিছুটা কমে যায়। এ ছাড়া ২০১১ ও ২০১৩ সালে চায়ের উৎপাদন আগের বছরের চেয়ে সামান্য কমে। মাঝে মাঝে কিছুটা কমলেও দেশে হেক্টর প্রতি চায়ের গড় উৎপাদন বাড়ছে।

বাংলাদেশ চা বোর্ডের সচিব মোহাম্মদ নূরুল্লাহ নূরি বলেন, বিরুপ আবহাওয়ায় মাঝে মধ্যে চায়ের উৎপাদনে কিছুটা তারতম্য হয়। অতিমাত্রায় বৃষ্টি ও ভূমিধ্বসে ২০১৭ সালে চায়ের উৎপাদন কিছুটা কমে যায়।

বাংলাদেশ চা বোর্ডের উপরিচালক ( পরিকল্পনা) মুনির আহমেদ বলেন, বিগত ১০ বছরের মধ্যে ২০১৬ সালে দেশে রেকর্ড পরিমাণ ৪৫.০৫ মিলিয়ন কেজি চা উৎপাদন হয়। এই রেকর্ড ভেঙ্গে দিয়ে চলতি ২০১৮ সালে আরও অতিরিক্ত চা উৎপাদন হবে বলে আশা করা যায়। চলতি বছরে প্রথম ৩ মাসে (জানুয়ারি, ফেব্রুয়ারি ও মার্চ) গত বছরের চেয়ে বেশি ৩ লাখ ১৩ হাজার কেজি চা উৎপাদন হবে। গত বছরের এই সময়ে ১ লাখ কেজির কিছু বেশি চা উৎপাদন হয়েছিল। শীতের পরে গরম বেশি থাকায় এ বছর চা উৎপাদন বাড়ছে।

দেশে ২০০৮ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ৫৮.৬৬ মিলিয়ন কেজি, ৫৯.৯৯ মিলিয়ন কেজি, ৬০.০৪ মিলিয়ন কেজি, ৫৯.১৩ মিলিয়ন কেজি, ৬২.৫২ মিলিয়ন কেজি, ৬৬.২৬ মিলিয়ন কেজি, ৬৩.৮৮ মিলিয়ন কেজি, ৬৭.৩৮ মিলিয়ন কেজি, ৮৫.০৫ মিলিয়ন কেজি ও ৭৮.৯৫ মিলিয়ন কেজি চা উৎপাদন হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত