প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নতুন পরীক্ষা পদ্ধতি সম্পর্কে  ড. এ কে আজাদ চৌধুরী
লাফ দেওয়ার আগে দেখতে হবে কিসে লাফ দিচ্ছি

আশিক রহমান : প্রশ্নপত্র ফাঁস এখন প্রায় নিয়মিত ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছে যে তা থেকে উত্তরণে যেকোনো পদক্ষেপই ভালো, যদি তা কার্যকর করা যায়। এমন মন্তব্য করেছেন শিক্ষাবিদ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ কে আজাদ চৌধুরী।

আমাদের অর্থনীতির সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থায় ইতোমধ্যেই একটা ধস নেমেছে। শিক্ষা খাতের ধস কিংবা প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে যদি কোনো ভালো উদ্যোগ নেওয়া হয় তা নিশ্চয় প্রশংসার দাবিদার। তবে সেই উদ্যোগটা কি সেটা আগে ভালোভাবে দেখতে হবে। লাফ দেওয়ার আগে আমাদের দেখতে হবে, আমরা কিসে লাফ দিচ্ছি। সেটা কি আগুন, পানি, পাথরে বা কিসে লাফ দিচ্ছি তা আগে থেকে পরিষ্কার হতে হবে।

তিনি আরও বলেন, প্রশ্নব্যাংক পরীক্ষাপদ্ধতি ভালো উদ্যোগ হলেও হতে পারে। কিন্তু এটাও খেয়াল রাখতে হবে যে, সমস্যা সমাধানে আমরা সঠিক পদক্ষেপটি নিচ্ছি কি না। কারণ আমরা শুধু চেঞ্জই করছি, বাট নট রাইট টার্গেট। আমাদের আসলে ডিসেন্ট্রালাইজড করে লোকাল লেভেল থেকে শিক্ষার উপরে জোর দেওয়া দরকার। প্রশ্নপত্র দিয়ে শিক্ষার্থীদের বিচার করার যে পরীক্ষাপদ্ধতি রয়েছে সেখানে সব সময় লেকিংস, ফলস থাকতে পারে। কিন্তু আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থার মূল সমস্যা মানসম্মত ও গুণগত শিক্ষা। শিক্ষা ব্যবস্থার মূল সমস্যা মূলত এ জায়গাটাতেই। ফলে মানসম্মত শিক্ষার দিকে আমাদের আরও বেশি জোর দিতে হবে। প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে হবে।

ড. এ কে আজাদ চৌধুরী বলেন, মানসম্মত, গুণগত শিক্ষা ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীর মধ্যে সম্পর্কের জায়গাটা উন্নত করতে হবে। নৈতিকতার উপর আরও জোর দিতে হবে। ছেলেমেয়েদের নৈতিক শিক্ষাটা দিতে হবে। শিক্ষকদের পাশাপাশি অভিভাবকদেরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হবে এ জায়গাটাতে। শিক্ষার্থীরা শিক্ষা থেকে কি শিখল তা বিচার-বিবেচনা করতে হবে। এ বিষয়গুলোতে গুরুত্বারোপ না করে পদক্ষেপ নিলে আশানুরূপ ফল মিলবে বলে মনে করি না আমি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত