প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চীনা সামরিক উদ্যোগে কমছে না মালদ্বীপের রাজনৈতিক অস্থিরতা

আসিফুজ্জামান পৃথিল : মালদ্বীপের রাজনৈতিক নাটকে নতুন করে প্রবেশ করেছে চীন। পূর্ব ভারত মহাসাগরে চীন নিজেদের একটি নৌবহর পাঠানোর পর পরিস্থিতি আরোও ঘোরালো হয়ে উঠেছে। ভারতীয় সামরিক পেশীশক্তি সংবলিত কূটনৈতিক পদক্ষেপ গ্রহণের পরোক্ষ হুমকি দেওয়ার প্রেক্ষাপটে চীন জানিয়েছে, পূর্ব ভারত মহাসাগরে তারা নৌ-বহর পাঠিয়েছে।
১ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিম কোর্টের দেয়া একটি রায়ের পর প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন ও সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ বিরোধী দলের মধ্যে সঙ্ঘাত সৃষ্টি হয়। ইয়ামিন ১৫ দিনের জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন। পরে এর মেয়াদ আরোও এক মাস বাড়িয়েছেন। ইয়ামিন মালদ্বীপের রাজনীতিতে চীনপন্থি বলে পরিচিত।
এদিকে জানা গেছে, চীনা নৌবহরটি ছোট হলেও বেশ সক্ষম। এতে রয়েছে টাইপ ০৫২ডি (জিয়াঙকাই ২) নিয়ন্ত্রিত ক্ষেপণাস্ত্র ডেস্টয়ার। এটিকে অত্যাধুনিক রণতরী বিবেচনা করা হয়। ৭৫০০ টনি জাহাজটিতে রয়েছে ২৮০ জন ক্রু। এতে হেলিকপ্টার, স্থল-আক্রমণে সক্ষম ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র, ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপণযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র, আকাশ থেকে আকাশে নিক্ষেপণযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র, সাবমেরিন বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে বলে অস্ট্রেলিয়ার একটি ওয়েবসাইটে (নিউজ.কম.এইউ) বলা হয়েছে।
টাইপ ০৭১ উভচর পরিবহন ডক মানবিক ত্রাণ ও সৈন্য অবতরণের জন্য আদর্শ। এটি দুটি হেলিকপ্টার ছাড়াও নানা ধরনের উভচর অ্যাসাল্ট যান ও অবতরণ যান বহন করতে পারে। এটি হাসপাতাল ও কমান্ড অ্যান্ড কন্ট্রোল সুবিধাও প্রয়োগ করতে পারে। এতে সঙ্কুলান হয় ৮০০’র মতো সৈন্য।
চীনের সমর্থনপুষ্ট ইয়ামিন সরকার ইঙ্গিত দিয়েছে, তারা কোনো ধরনের বিদেশী মধ্যস্থতাকারী গ্রহণ করবে না। চীনা দৃষ্টিভঙ্গির সাথে দ্বিমত প্রকাশ করে ভারত মনে করছে, বিদেশী শক্তিগুলোর হস্তক্ষেপ করা উচিত। তবে ভারত এ ব্যাপারে এখনও কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি।
এদিকে চীনা কমিউনিস্ট পার্টি সমর্থিত গেøাবাল টাইমস ভারতীয় সামরিক হস্তক্ষেপের প্রতি তাচ্ছিল্যপূর্ণ সমালোচনা করে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছে, ভারত যদি মালদ্বীপের পানিসীমায় জোরপূর্বক প্রবেশের চেষ্টা চালায় তবে চীন তাতে বাধা দেবে। -সাউথ এশিয়ান মনিটর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত