প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কুড়িগ্রামে অস্বাভাবিকভাবে পানের মূল্য বৃদ্ধি

সৌরভ কুমার ঘোষ, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামে অস্বাভাবিক ভাবে বাড়ছে ঐতিহ্যবাহী অতিথি আপ্যায়নের অন্যতম উপাদান পান পাতার মূল্য। এতে বিপাকে পড়েছে পান পিয়াসীরা। পান পিয়াসীদের অভিযোগ অস্বাভাবিক এই মূল্য বৃদ্ধির কারণ অসাধু সিন্ডিকেট।

কুড়িগ্রামের উলিপুর, রাজারহাট, নাগেশ্বরী ও ভূরুঙ্গামারী উপজেলার হাট-বাজার ঘুরে জানা গেছে, সপ্তাহের ব্যবধানে পানের মূল্য কয়েকগুন বৃদ্ধি পেয়েছে। গত সপ্তাহে যে পানের বীড়া (নাটোরের ৬০ পানে এক বীড়া আর কুষ্টিয়ার ৮০ পানে এক বীড়া) ৫০-৬০ টাকা ছিল তা বর্তমানে দেড়’শ টাকা এবং খিলি পান যা গত সপ্তাহে ১০০-১২০ টাকা ছিল তা বর্তমানে তিন’শ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

চলতি শীত মৌসুমে জেলার পান চাষীদের পানের বরজগুলোর পান পাতা অজ্ঞাত রোগে ঝড়ে পড়ায় স্থানীয় বাজারে পানের সরবরাহ কমে গেছে। ফলে মহেশখালি, রাজশাহী ও কুষ্টিয়া থেকে পান আমদানির পরিমাণ বেড়ে গেছে। এতে স্থানীয় পান ব্যবসার সাথে জড়িতরা এ বছর ব্যাপক লোকশানের সম্মুখীন হচ্ছেন ।

পান ব্যবসায়ী নূরুজ্জামান, নূর আমীন জানান, গত সপ্তাহে মোকাম থেকে পান কিনে এনে তাদের আট-নয় জন ব্যবসায়ী প্রত্যেকে ৬০ হাজার টাকা করে লোকশান গুনেছেন। পানগুলো যে শীতে ঝড়ে পড়া পান ছিল তা তারা আগে বুঝতে পারেন নাই। বর্তমানে মোকামেই পানের আকাল চলছে। মোকাম থেকে ৪০ টাকা বীড়ার পান ৩’শ টাকা বীড়া মূল্যে কিনতে হচ্ছে। যা এর পূর্বে তারা কখনোই এ পরিস্থিতির সম্মুখীন হন নাই।

ব্যবসায়ীরা জানান, মোকামে পানের দাম বাড়তি হওয়ায় তার সাথে পরিবহন ও অন্যান্য খরচ যোগ হওয়ার ফলে অস্বাভাবিকভাবে পানের দাম বেড়েই চলছে। জানি না আমরা কিভাবে ব্যবসায় টিকে থাকবো?

কুড়িগ্রাম শহীদ জিয়া বাজার ও পৌর বাজারের খুচরা পান বিক্রেতা জসিম এবং আব্দুস সাত্তার জানান, বেশি দামে পান কিনে আনার কারণে বেশি দামেই বিক্রি করতে হচ্ছে। দাম বৃদ্ধিতে আমাদের কোনো প্রকার সিন্ডিকেট নাই। আমরা চাই সাধারণ মানুষ যাতে সহজেই পান কিনে খেতে পারে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত