প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

টিআইবির বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছে বিএসইসি

মাসুদ মিয়া: দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) কৌশলগত মালিকানা বাছাইয়ে অবৈধ হস্তক্ষেপ টিআইবির বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। গতকাল শনিবার বিএসইসি‘র নিবার্হী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান সাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞতির মাধ্যমে এ প্রতিবাদ জানান। প্রেস বিজ্ঞতিতে জানানো হয়েছে, ডিএসই‘র কৌশলগত মালিকানা বাছাইয়ে অবৈধ হস্তক্ষেপ টিআইবির উদ্বেগ: জড়িতদের জবাবদিহি ও সংশ্লিষ্ট দরদাতাকে কালো তালিকাভুক্তর আহবান শিরোনামে গত শুক্রবার ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) কর্তৃক প্রদত্ত সংবাদ বিজ্ঞপ্তি শনিবার কয়েকটি সংবাদ পত্রে প্রকাশিত হয়েছে। এ বিষয়টি বাংলাদেশ সিকিউরিটি এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নজরে এসেছে।

এ বিষয়ে বিএসইসির বক্তব্য নিন্মরুপ- প্রথমত : ডিএসইতে কৌশলগত বিনিয়োগকারী নিয়োগ সংক্রান্ত কোন প্রস্তাব বিএসইসি এখনও পায়নি। ফলে প্রস্তাবসমূহ কিরুপ, তার শর্তসমূহ কি কি এবং দরপত্র মূল্যায়নের ক্ষেত্রে বিবেচ্য বিষয় কি, তা না জেনে বিএসইসির পক্ষে প্রস্তাবসমূহের সুবিধা অসুবিধা বিশ্লেষণ করা এখনও সম্ভব হয় না।

তবে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় এবং ডিএসইর সাথে অনানুষ্ঠানিক যোগাযোগের মাধ্যমে বিএসইসি জানতে পেরেছে যে, উক্ত কৌশলগত বিনিয়োগকারী নির্বাচনে দুটি কনসোর্টিয়াম আগ্রহ প্রকাশ করেছে।
উল্লেখ্য, ডিএসই কর্তৃপক্ষ এই দুইটি কনসোর্টিয়ামকে নিয়ে একাধিকবার বিএসইসির সাথে বাজার ও সংশ্লিষ্ট আইনের বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেছে। বিএসইসি এই বিষয়ে অত্যন্ত আনন্দিত যে, ডিএসইর শেয়ার ক্রয়ে দুইটি বড় প্রতিবেশী দেশের দুই কনসোর্টিয়ামের আগ্রহ বাংলাদেশ পুঁজিবাজার উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ নির্দেশ করে। বিএসইসি বাংলাদেশ পুঁজিবাজারের ভবিষ্যৎ নিয়ে এতদিন যা বলে আসছিলো, এ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

টিআইবি শুধুমাত্র সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যের উপর ভিত্তি করে যে বিবৃতি প্রকাশ করেছে তা অত্যন্ত দ:খজনক। এই বিবৃতি প্রকাশের আগে টিআইবি, বিএসইসির সাথে কোন র“প যোগাযোগ করেনি বা বিএসইসির কোন বক্তব্য জানার চেষ্টা করেনি। টিআইবির মত একটি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কোনভাবেই বিএসইসি এটি আশা করে না।

বিএসইসি এই ব্যাপারে সুস্পষ্টভাবে এক্সচেঞ্জেস ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন আইন, ২০১৩ এর সংশ্লিষ্ট ধারা সবার জ্ঞাতার্থে নিম্নে উল্লেখ্য করছে: “১২। শেয়ার হোল্ডিং এর সীমা, ইত্যাদি।
(১) ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন এক্সচেঞ্জ এর ক্ষেত্রে – (ক)……… (খ) কোন কৌশলগত বিনিয়োগকারী, কমিশনের অনুমোদন সাপেক্ষে, উহার মোট ইস্যুকৃত শেয়ারের ২৫ শতাংশ পষর্ন্ত ধারন করিতে পারবে। (গ)…………

অতএব, এই বিষয়টি স্পষ্ট যে, যখন বিএসইসি, ডিএসই থেকে সব তথ্যসহ সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব পাবে, তখন বিএসইসির পক্ষে কোন সিদ্ধান্ত গ্রহন সম্ভব হবে। কোন সিদ্ধান্ত গ্রহনের আগেই টিআইবি যেভাবে তার সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিএসইসির বির“দ্ধে অবৈধ হস্তক্ষেপ ও অবৈধ চাপ প্রয়োগের অভিযোগ এনেছে তাতে বিএসইসি অত্যন্ত মর্মাহত। বিএসইসির সাথে কোন প্রকার যোগাযোগ ব্যতীত টিআইবির মত প্রতিষ্ঠান যে ভিত্তিহীন মন্তব্য করেছে, তা অত্যন্ত আপত্তিকর। টিআইবি কিভাবে জানলো যে বিএসইসি দরদাতা প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগসাজসে বা প্রভাবন্বিত হয়ে অনৈতিক চাপ প্রয়োগ করেছে। এ ধরনের প্রমান টিআইবির কাছে থাকলে তা জনসমক্ষে প্রকাশের জন্য বিএসইসি টিআইবিকে অনুরোধ করছে।

টিআইবির সংবাদ বিজ্ঞতিতে এও বলা হয় যে, “দর প্রস্তাব মূল্যায়নে প্রায় অর্ধেক পিছিয়ে থাকা প্রতিষ্ঠানের পক্ষে নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠানের এই ধরনের তদবির ও চাপ প্রয়োগ যেমন নজিরবিহীন ও আইনবির“দ্ধ, বিএসইসি কর্তৃক তাতে প্রভাবিত হয়ে বাছাই প্রক্রিয়াকে কলূষিত করে অযোগ্য প্রতিষ্ঠান নির্বাচনে ইন্ধন যোগানো তেমনি বেআইনী ও অগ্রহনযোগ্য “ সংবাদের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই না করে এ ধরনের চূড়ান্ত মন্তব্য টিআইবির গ্রহনযোগ্যতা প্রশ্নবিদ করে। যে প্রস্তাব এখনো পায় নাই এবং প্রস্তাব সম্পর্কে এখনো কোন সিদ্ধান্ত গ্রহন করে নাই, সেক্ষেত্রে টিআইবি কি তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে এ মন্তব্য করেছে তা ব্যাখা করলে বিএসইসর পক্ষে জবাব দেওয়া সুবিধাজনক হতো।

বিএসইসি আশা করে টিআইবি ভবিষ্যতে এধরনের একতরফা ও ভূল তথ্যের উপর ভিত্তি করে ও সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষের সাথে যোগাযোগ ব্যতিরেকে প্রেস বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠানের সুনাম ও আস্থা ক্ষুন্ন করে পুঁজিবাজারকে অস্থিতিশীল করার প্রচেষ্টা থেকে বিরত থাকবে।
বিএসইসির উপর অর্পিত আইনানুগ দায়িত্বে আলোকে তার কর্মকান্ড স্বচ্ছতার সাথে পরিপালন করে এসছে। ভবিষ্যতেও বিনিয়োগকারী, পুঁজিবাজার তথা জাতীয় স্বার্থকে সবসময় সমুন্নত রাখবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত