প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খালেদা জিয়ার কারাদণ্ডে আত্মবিশ্বাস বাড়ছে আ. লীগের

ডেস্ক রিপোর্ট : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়ে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কারাবরণ ইস্যুতে দিন যতই যাচ্ছে, ততই আত্মবিশ্বাস বাড়ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের। ক্ষমতাসীন দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা বলছেন, খালেদা জিয়ার কারাদণ্ডের বিষয়টিকে রাজনৈতিক ও আন্তর্জাতিক মহল স্বাভাবিক বিষয় হিসেবে নিয়েছে। এই ইস্যুতে সরকার উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে পারায় আওয়ামী লীগে আত্মবিশ্বাস বেড়েছে। পাশাপাশি বিএনপির রাজনৈতিক শক্তি সম্পর্কেও একটি ধারণা পাওয়া গেছে। যা নির্বাচনি লড়াইয়ের মাঠে আওয়ামী লীগের জন্য সুফল বয়ে আনবে।

ক্ষমতাসীন দলটির নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের নেতাদের ধারণা, খালেদা জিয়ার কারাদণ্ড ইস্যুতে দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্থিতিশীল থাকায় ভবিষ্যতে দলটির অন্য নেতাদেরও দুর্নীতির মামলা সাজা হলে বিএনপি কোনো রকম বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে পারবে না। দলটির অন্তত ডজনখানেক নেতাকে নাশকতা-দুর্নীতির মামলায় বিচারের আওতায় আনা গেলে আগামী নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠভাবে অনুষ্ঠানে কোনও বিঘ্ণ সৃষ্টি হবে না। এ কারণে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে চলমান গুরুত্বপূর্ণ মামলাগুলোর দিকে নজর দিতে সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা। তাদের পরামর্শ—বিএনপির শীর্ষ নেতাদের দুর্নীতিবাজ প্রমাণ করতে পারলেও নির্বাচনি মাঠে এই ইস্যু আওয়ামী লীগের জন্য সুফল বয়ে আনেবে।

এ প্রসঙ্গে সরকারি সফরে দেশের বাইরে গেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক বক্তব্যে বলেন, ‘দুর্নীতিবাজরে বিচার অবশ্যই হওয়া উচিত।’ দলীয় প্রধানের এই বক্তব্যকে রাজনৈতিক কৌশলেরই ইঙ্গিত বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা। তারা বলছেন, খালেদা জিয়ার কারাদণ্ডের রায়-পরবর্তী পরিস্থিতি বিচার বিশ্লেষণে আওয়ামী লীগকে এখন আরও বেশি আত্মবিশ্বাসী করে তুলেছে।

আওয়ামী লীগের নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক নেতা জানান, বিএনপির নেতাদের নামে থাকা নাশকতার মামলাগুলো চাঙ্গা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যেন দলটি বড় কোনও আন্দোলনের ঘোষণা দিতে না পারে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ক্ষমতাসীন দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘দুর্নীতিবাজ রাজনীতিকদের বিচার হওয়া উচিত।’ তিনি বলেন, দুর্নীতি আর রাজনীতি একসঙ্গে চলতে পারে না।’

জানতে চাইলে দলটির সভাপতিমণ্ডলীর আরেক সদস্য ফারুক খান বলেন, ‘রাজনীতি মানে সেবা। যারা রাজনীতি করবেন, তারা দুর্নীতি করবেন তা হতে পারে না। রাজনীতিকে দুর্নীতিমুক্ত করতে হলে অবশ্যই দুর্নীতবাজদের বিচার হওয়া উচিত এবং এই সরকার তাই করবে।’ বাংলাট্রিবিউন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত