প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাগ থেকে মুক্ত থাকার আমল

সাইদুর রহমান: রাগ মানুষের প্রাকৃতিক স্বভাবের একটি। তবে রাগের তারতম্য আছে। রাগান্বিত হয়ে মানুষ অনেক কিছু করে ফেলে। অনেক সময় বড় ধরণের হুমকির সম্মুখীন হয়। এজন্য ইসলামে রাগ দমন করার বিষয়ে অনেক বিষয় শিক্ষা দিয়েছে। যেমন, প্রচণ্ড রাগান্বিত হলে অবস্থান পরিবর্তন করা অর্থাৎ যদি দণ্ডায়মান থাকে তবে বসে পড়বে বা শুয়ে যাবে। এ বিষয়ে হাদীসে এসেছে, আবু যর রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, “তোমাদের কেউ যদি রেগে যায় তবে সে যদি দণ্ডায়মান থাকে তাহলে বসে পড়বে। তাতেও যদি রাগ না থামে তবে শুয়ে পড়বে।” আবু দাউদ, অধ্যায়, হাদীছ নং- ৪১৫১ মিশকাত হাদীছ নং- ৫১১৪

আরেকটি শিক্ষঅ হলো রাগান্বিত হলে চুপ হয়ে যাওয়া। হাদীসে এসেছে, ইবনে আব্বাস রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, “তোমরা শিক্ষা প্রদান কর, মানুষের উপর সহজ কর, কঠোরতা আরোপ করোনা, তোমাদের কেউ রাগন্বিত হয়ে গেলে সে যেন চুপ থাকে।” আহমাদ, হাদীছ নং- ২০২৯

আরেকটি শিক্ষা হলো আউযু বিল্লাহি মিন শ্শায়তান তথা শয়তানের কাছ থেকে আল্লাহর কাছে পানাহ চাচ্ছি। এ বিষয় হাদীসে একটি ঘটনা এসেছে। হযরত সুলাইমান ইবনে সুরাদ থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন,একবার দু’জন লোক রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর দরবারে পরষ্পরকে গালিগালাজ করছিল। তদের একজন ক্রুদ্ধ হয়ে উঠেছিল। তার ক্রোধ এত অধিক হয়েছিল যে,তার ঘাড়ের রগগুলো ফুলে উঠছিল এবং তার বর্ণ পরিবর্তন হয়ে গিয়েছিল। তার এই অবস্থা দেখে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন,
“আমি এমন একটি বাক্য জানি, লোকটি তা বললে তার রাগ দুর হয়ে যাবে। এক ব্যক্তি তার নিকট এগিয়ে গিয়ে রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যা বলেছেন তা তাকে জানালো। বলল, তুমি শয়তান থেকে আল্লাহর নিকট আশ্রয় প্রার্থনা কর। সে বলল, আমার মধ্যে কি অসুবিধা দেখেছ? আমি কি পাগল নাকি? তুমি যাও এখান থেকে ।” বুখারী, হাদীছ নং- ৫৫৮৮। মুসলিম, হাদীছ নং- ৪৭২৫

রাগ দমন করতে পারলে হাদীসে সুসংবাদ এসেছে। হাদীসে এসেছে, আনাস রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, “যে ব্যক্তি স্বীয় ক্রোধকে সংবরণ করে, অথচ সে বাস্তবায়ন করতে সক্ষম ছিল, তাকে আল্লাহ তাআলা কিয়ামতের ময়দানে সকল মানুষের সামনে আহবান করবেন। অতঃপর জান্নাতের আনত নয়না হুর থেকে যাকে ইচ্ছা বেছে নিতে স্বাধীনতা দিবেন এবং তার ইচ্ছানুযায়ী তাদের সাথে তার বিবাহ দিয়ে দিবেন।” আবু দাউদ, হাদীছ নং- ৪১৪৭। তিরমিজী, হাদীছ নং- ১৯৪৪। ইবনে মাজাহ হাদীছ নং- ৪১৭৬

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত