প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের আরও ভালো খেলা উচিত ছিল’

নিজস্ব প্রতিবেদক: ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম সংস্করণ টি-টুয়েন্টি। কম ওভারের খেলা হওয়ায় দুই দলের পার্থক্য কমই থাকে। তাই এ সংস্করণে বাংলাদেশের বেশ ভালো সম্ভাবনাই দেখেছিলেন বিশেষজ্ঞরা।
আদতে হয়েছে ঠিক উল্টো। এখন পর্যন্ত ৬৯টি টি-টুয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। যার মধ্যে জয় মাত্র ২১টি। এর অধিকাংশই এসেছে দুর্বল দলগুলোর বিপক্ষে। তাই টি-টুয়েন্টিতে আরও উন্নতি করা উচিত বলেই মনে করেন দলের অন্যতম সেরা তারকা তামিম ইকবাল খান। আশা করছেন এ সংস্করণে আরও ভালো খেলতে পারবে টাইগাররা।

ওয়ানডে ও টেস্টে গত কয়েক বছরে বেশ উন্নতি করেছে বাংলাদেশ। সে তুলনায় বেশ পিছিয়ে টি-টুয়েন্টিতে। এ সংস্করণে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটটা খুব বেশি না খেললেও আন্তর্জাতিক মানের ঘরোয়া টুর্নামেন্ট খেলে বাংলাদেশ। তাই এ সংস্করণে আরও ভালো কিছুই আশা করছেন তামিম, ‘এই একটা সংস্করণে আমি বিশ্বাস করি আমরা যা করি তারচেয়ে আরও ভালো করতে পারি। আমরা যা খেলছি তারচেয়ে অনেক ভাল খেলতে পারি। এই সংস্করণে আমরা আন্তর্জাতিক মানের ঘরোয়া টুর্নামেন্টও খেলি, যেটা বিপিএল। তাই এই সংস্করণে আমাদের আরও ভালো করা উচিত। আশা করি আমরা আরও ভালো খেলতে পারবো।’

২০০৬ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম টি-টুয়েন্টি ম্যাচ খেলে বাংলাদেশ। গত এক যুগে বাংলাদেশ ৬৯টি টি-টুয়েন্টি খেললেও একই সময়ে পার্শ্ববর্তী দেশগুলো খেলেছে প্রায় দ্বিগুণ। তবে চলতি বছরেই বেশ কিছু টি-টুয়েন্টি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। আর তাতে দারুণ খুশি তামিম। আশা করছেন খুব শিগগিরই এ সংস্করণেও ভালো খেলতে শুরু করবে টাইগাররা।

টি-টুয়েন্টিতে ভালো করার জন্য এখন থেকেই সঠিক পরিকল্পনা চান তামিম, ‘এখন পরিস্থিতিটা একটু আলাদা। আপনি যদি দেখেন আমরা সাধারণত টি-টুয়েন্টি খেলতাম খুবই কম। কিন্তু আপনি যদি আমাদের পরবর্তী ৬ মাস বা এক বছরের ফিকচার দেখেন আমরা কিন্তু প্রচুর পরিমাণ টি-টুয়েন্টি খেলবো। হয়তো ওয়ানডের চেয়েও বেশি। আমরা এখানেও ২টি খেলবো, আশা করি শ্রীলঙ্কায় পাঁচটা খেলবো। তারপর ওয়েস্ট ইন্ডিজেও দুইটা না তিনটা টি-টুয়েন্টি আছে। এখন আমার কাছে মনে হয় এটাই সঠিক সময় যে আমাদের কোন ধরণের পরিকল্পনায় আমরা আগাবো।’

২০২০ সালে টি-টুয়েন্টির পরবর্তী বিশ্বকাপ হবে অস্ট্রেলিয়ায়। এর আগেই সঠিক পরিকল্পনা গড়ে এগিয়ে যাওয়ার কথা বললেন তামিম। এর মধ্যেই চলতি শ্রীলঙ্কা সিরিজের জন্য ৬ জন নতুন মুখ ডেকেছে বিসিবি। যারা প্রত্যেকেই বিপিএলে ধারাবাহিক পারফর্মার। এটাকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছেন তিনি। আশা করছেন তাদের পর্যাপ্ত সুযোগ দেবেন নির্বাচকরা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ