Skip to main content

‘আসমা জাহাঙ্গীর বাংলাদেশকে ভীষণ ভালবাসতেন’

মারুফ হাসান নাসিম : মানুষ হিসাবে আসমা জাহাঙ্গীর অত্যন্ত ভাল মানুষ ছিলেন। তার চিন্তা-চেতনার মধ্যে অনেক উদারতা ছিলো। তিনি বাংলাদেশকে ভীষন ভালবাসতেন। তিনি শুধু পাকিস্তানেই নয়, পুরো দক্ষিণ এশিয়ার কোথায়ও কোনো সমস্যা হলে কোনো দিক বিবেচনা না করে, সাধারণ মানুষের জন্য নৈতিকতার বিচারে সবসময়ই তিনি ভুমিকা রেখেছেন। তার মৃত্যুতে, উপমহাদেশ একজন বিশাল ব্যক্তিত্ব, একজন লড়াকু সৈনিক, একজন গণমানুষের বন্ধুকে হারিয়েছে। পাকিস্তানের বিশিষ্ট মানবাধিকার কর্মী আসমা জাহাঙ্গীরের মৃত্যুতে তাকে মুল্যায়ন করে বিশিষ্ট মানবাধিকার কর্মী খুশি কবির আমাদের অর্থনীতিকে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, আসমা জাহাঙ্গীর ও তার বোন দুইজনই অ্যাডভোকেট ছিলেন। তার বাবা পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ছিলেন এবং বঙ্গবন্ধুর অত্যন্ত কাছের লোক ছিলেন। শুধু রাজনৈতিক ভাবেই নয় পারিবারিক ভাবেও অত্যন্ত ঘনিষ্ট ছিলেন তারা। আসমা জাহাঙ্গীর ও তার বোন দুইজনই ন্যায়ের পক্ষে স্পষ্ট ভূমিকা রেখেছেন। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে তারা বাংলাদেশের পক্ষে ছিলেন। তার ভূমিকার কারণেই পাকিস্তানি নারী সংগঠনগুলো ১৯৭১ সালে গণহত্যার জন্য দুঃখ প্রকাশ এবং ক্ষমা চেয়েছে।
তিনি আরও বলেন, আসমা জাহাঙ্গীর অত্যাধিক সাহসী নারী ছিলেন। তিনি অত্যন্ত স্পষ্টভাষী ছিলেন, সত্যকে সত্য বলতে তিনি ভয় পেতেন না। প্রত্যেকটি অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন। তিনি পাকিস্তানের জন্য একটা বড় শক্তিতো বটেই কারণ প্রত্যেক প্রধানমন্ত্রী এবং রাষ্ট্রপতি তার কথাকে ভয় পেতেন। এজন্য সরকার এবং বাহির থেকে অনেক হুমকি ও জেল-জুলুমের স্বীকার হয়েছেন তিনি। তারপরও তিনি তার কাজ চালিয়ে গেছেন।  

অন্যান্য সংবাদ