প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আরো কড়া আইন ডিজিটাল সিকিউরিটি এ্যাক্ট: আসিফ নজরুল

আল-আমীন আনাম: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের বিতর্কিত ৫৭ ধারা বিলুপ্ত করে মন্ত্রিসভায় পাস হয় ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০১৮’। সরকার ৫৭ ধারা বাতিলের দাবি করলেও মূলত নতুন আইনে বিষয়গুলো ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রাখা হয়েছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সংযোজিত ৩২ ধারার বিরুদ্ধে রীতিমতো সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়।

‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০১৮’ নিয়ে ফেসবুকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ও কলামিস্ট ড. আসিফ নজরুল লিখেছেন, টিভিতে কথা বলার সুযোগ বন্ধ করা হয়েছে। পত্রিকায় আগের মতো করে লেখার সুযোগ কম। ফেসবুকে লিখলে দশবার চিন্তা করতে হয় নানান আইনের কথা। এখন আসছে আরো কড়া আইন-ডিজিটাল সিকিউরিটি এ্যক্ট! জানি না এর শেষ কোথায়। মাঝে মাঝে হতাশ লাগে আজকাল!

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৩২ ধারায় বলা হয়েছে, যদি কোনো ব্যক্তি বেআইনি প্রবেশের মাধ্যমে কোনো সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত বা সংবিধিবদ্ধ প্রতিষ্ঠানে বেআইনিভাবে প্রবেশ করে কোনো ধরনের গোপনীয় বা অতিগোপনীয় তথ্য-উপাত্ত কম্পিউটার, ডিজিটাল ডিভাইস, কম্পিউটার নেটওয়ার্ক বা ডিজিটাল নেটওয়ার্ক অন্য কোনো ইলেক্ট্রনিক মাধ্যমে গোপনে ধারণ, প্রেরণ বা সংরক্ষণ করেন বা করতে সহায়তা করেন, তাহলে তা গুপ্তচরবৃত্তির অপরাধ বলে গণ্য হবে। এ জন্য ১৪ বছরের জেল এবং ২০ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত