প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সংসদে ভারতের অর্থনৈতিক সমীক্ষা পেশ: জিডিপি বৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ৭-৭.৫ শতাংশ

আশিস গুপ্ত ,নয়াদিল্লি: রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের বক্তৃতার মাধ্যমে ভারতের সংসদে শুরু হল ২০১৮ সালের বাজেট অধিবেশন।সংসদের দুই সদনের যৌথ অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির ভাষণের পর লোকসভায় ‘অর্থনৈতিক সমীক্ষা-২০১৮’পেশ করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুন জেটলি। ২০১৯’র সাধারণ নির্বাচনের আগে এনডিএ সরকারের শেষ পূর্ণাঙ্গ বাজেট পেশ করা হবে আগামী ১ফেব্রুয়ারি।

তার আগে নিয়মমাফিক পেশ করা অর্থনৈতিক সমীক্ষায় আগামী অর্থবর্ষে(২০১৮-১৯),যা শুরু হবে আগামী ১এপ্রিল থেকে , জিডিপি বৃদ্ধির লক্ষমাত্রা ৭-৭.৫ শতাংশ রাখা হয়েছে । চলতি অর্থবর্ষে ,যা শেষ হবে আগামী ৩১ মার্চ ,জিডিপি বৃদ্ধি ৬.৭৫ শতাংশ হতে পারে বলেও আশা করা হয়েছে সমীক্ষায়।রিপোর্টে নোটবন্দি থেকে জিএসটি’র মতো বিষয়গুলির উল্লেখ করে বলা হয়েছে, দেশের অর্থনৈতিক স্বাস্থ্য উন্নত করতে একাধিক পদক্ষেপ করেছে কেন্দ্র। এর ফলে ভবিষ্যতে জিডিপি বৃদ্ধি আশানুরূপ হবে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।প্রশংসা করা হয়েছে সরকারের ব্যাঙ্কিং সংস্কারেরও। বিদেশি বিনিয়োগ আনতে সরকারের প্রশংসা করে আরও উদারিকরণের পথে হাঁটার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে রিপোর্টে।

২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের জন্য অবশ্য আগেই ৭.৪ জিডিপি বৃদ্ধির ইঙ্গিত দিয়েছিল আন্তর্জাতিক অর্থ ভান্ডার। ২০১৯-২০ অর্থবর্ষের জন্য যা রয়েছে ৭.৮ শতাংশ। সেখানেও জিএসটি, ব্যাঙ্কিংয়ের মতো পদক্ষেপগুলির প্রশংসা করা হয়েছিল। মোটামুটি সেই পথেই হাঁটল অর্থনৈতিক সমীক্ষা রিপোর্ট। তবে বেশ কিছু আশঙ্কার কথাও শোনা গিয়েছে আর্থিক সমীক্ষা রিপোর্টে। যেভাবে দিনদিন আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম বাড়ছে তাতে আগামী বছরে জিডিপি–র ওপর বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে বলে জানানো হয়েছে। আমেরিকার নাম না করেও তাদের অতি রক্ষণশীল আর্থিক নীতির সমালোচনা করা হয়েছে। আর তার জেরে ভারতের অর্থনীতি কিছুটা হলেও শ্লথ হবে বলে জানানো হয়েছে।এই প্রথম রাজ্যগুলোর রপ্তানিকেও সমীক্ষার মধ্যে রাখা হয়েছে। যে সমস্ত রাজ্য আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে অংশ নিয়েছে তারা আরও ধনী হয়েছে। মহারাষ্ট্র, গুজরাট, কর্নাটক, তামিলনাড়ু এবং তেলঙ্গানা–এই পাঁচ রাজ্য ভারতের মোট রপ্তানির ৭০ শতাংশ অধিকার করে রয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত