প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইসলামের বিধান মতে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষেরা

মুফতি আবদুল্লাহ তামিম : পৃথিবীর সব মানুষই আল্লাহর সৃষ্টি। তৃতীয় লিঙ্গ তথা হিজড়া সম্প্রদায়ও আল্লাহ তায়ালারই বান্দা। তারাও আশরাফুল মাখলুকাত তথা সৃষ্টির সেরা জীব। তারাও মানুষ তবে যেমন অনেক মানুষের শারিরিক ত্রুটি থাকে তেমনি এটিও তাদের একটি ত্রুটি। এ ত্রুটির কারণে তারা মনুষত্ব থেকে বেরিয়ে যায় না। তাদের সাথে দুর্ব্যবহার করা, খারাপ মন্তব্য করা মারাত্মক গোনাহের কাজ।

মৌলিকভাবে ইসলামে মানুষকে পুরুষ ও নারী হিসাবে গণ্য করা হয়ে থাকে। ইসলাম উভলিঙ্গদের নারী অথবা পুরুষ বৈশিষ্ট্যের উপর ভিত্তি করে গণ্য করতে বলেছে। তাই তাদের ব্যাপারে আলাদা কোন বিধান আরোপ করা হয়নি। উভলিঙ্গের অধিকারী কোন ব্যক্তির মাঝে যে বৈশিষ্ট্য বেশি থাকবে, সে সেই প্রজাতির অন্তর্ভূক্ত হবেন। পুরুষের ভাব বেশি থাকলে পুরুষ, নারীর ভাব বেশি থাকলে নারীর বিধান প্রযোজ্য হবে। হযরত আলী রা. কে এমন শিশু সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়, যার ছেলে বা মেয়ে বৈশিষ্ট্য পরিস্কার নয়। তখন হযরত আলী রা. বললেন, সে যেভাবে পেশাব করে সে হিসেবে মিরাস পাবে। (সুনানে বায়হাকী কুবরা-১২৯৪,কানযুল উম্মাল-৩০৪০৩)

হিজড়াদের ক্ষেত্রে বিধান হল তাদের নারী বা পুরুষের যে কোন একটি ক্যাটাগরিতে ফেলতে হবে। রাসূল সা. এ ব্যাপারে একটি মূলনীতি নির্ধারণ করে দিয়েছেন। সেটা হল গোপনাঙ্গ যদি পুরুষালী হয়, তাহলে পুরুষ। যদি নারীর মত হয়, তাহলে নারী। আর যদি কোনটিই বুঝা না যায়। তাহলে তাকে নারী হিসেবে গণ্য করা হবে। সেই হিসেবেই তাদের উপর শরয়ী বিধান আরোপিত হবে। (মুসান্নাফ আব্দুর রাজ্জাক-১৯২০৪)

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত